fbpx
বগুড়া জেলার সংবাদশাজাহানপুর

সাঁকোর মুখ বন্ধ ॥ জলাবদ্ধতার হাত থেকে রক্ষা পেতে গ্রামবাসির মানবন্ধন

শাজাহানপুর প্রতিনিধি জিয়াউর রহমানঃ বগুড়া শাজাহানপুরের আড়িয়া বাজার এলাকায় ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কের কালভার্ট ব্রীজের মুখ বন্ধ করে দেয়ায় বৃষ্টির পানি বের হতে না পারায় জলাবদ্ধতার শিকার হয়ে চরম দূর্ভোগে পড়েছেন এলাকাবাসি। জলাবদ্ধতায় রাস্তাঘাটে যাতায়াতে বিঘ্ন ঘটার পাশাপাশি হুমকির মুখে পড়েছে জমির ফসল। ধ্বসে পড়ার উপক্রম দেখা দিয়েছে মাটির তৈরী বাড়িঘর।

এমতাবস্থায় জলাবদ্ধতার হাত থেকে রক্ষা পেতে সাঁকোর মুখ খুলে দেয়ার পাশাপাশি পানি নিষ্কাশনের জন্য স্থায়ীভাবে কালভার্ট ব্রীজ নির্মাণের দাবীতে মানববন্ধন করেছেন এলাকার শত শত নারী-পুরুষ।

রবিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলার আড়িয়া বাজার এলাকায় ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কের পাশে স্বাস্থ্যবিধি মেনে এই মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করা হয়।

মানববন্ধনে স্থানীয় ইউপি সদস্য জোসনা বেগম, অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক আব্দুর মতিন, আনসার আলী মোন্না, আমজাদ হোসেন, আব্দুস সোবহান, গোলাম মোস্তফা, সাইদুল ফকির, আব্দুল ওহাব, মোস্তা, আজিজুল হক, সুলতান আহমেদ, আবু মুসা, আসাদুজ্জামান বিদ্যুৎ, আকতার হোসেন, বকুল হোসেন, হাফিজুর রহমান সহ স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ অংশ গ্রহন করেন।

মানববন্ধনে আসা ভুক্তভোগীরা জানান, বহুবছর আগে থেকেই আড়িয়া বাজার এলাকায় ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কের তিনটি কালভার্ট সাঁকো দিয়ে কাঁটাবাড়িয়া গ্রামের তিন পাড়ার ও আবাদি জমির পানি নিষ্কাশন হতো। কিন্তু মহাসড়ক উন্নয়ন কাজের জন্য ওই তিনটি সাঁকোর মুখ বন্ধ করে দেয়ায় বৃষ্টির পানি নিষ্কাশন হতে না পারায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। ফলে রাস্তাঘাট যাতায়াতের অনুপযোগী হয়ে পড়ে। মাটির তৈরী ঘরবাড়ি ধ্বসে পড়ার উপক্রম হয়ে পড়েছে। মাঠের ফসল হুমকির মুখে পড়েছে। এমতাবস্থায় দূর্ভোগ ও ক্ষয়ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা পেতে দ্রুত সাঁকোর মুখ খুলে দেয়ার পাশাপাশি স্থায়ীভাবে পানি নিষ্কাশনের জন্য সংশ্লীষ্ট প্রশাসনের প্রতি কালভার্ট ব্রীজ নির্মাণের দাবী জানান এলাকাবাসি। কালভার্ট ব্রীজ নির্মাণ করা না হলে সারাজীবনের জন্য দূর্ভোগ পোহাতে হবে বলেও জানান তারা।

এশিয়ান ডিভলপমেন্ট ব্যাংক (এডিবি) এর প্রকল্প ব্যবস্থাপক হামিদুল হক জানান, সরেজমিন পরিদর্শণ করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। কালভার্ট ব্রীজের প্রয়োজন হলে জনস্বার্থে প্রকল্প থেকে তার ব্যবস্থা ক

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

4 × 3 =

Back to top button
Close