fbpx
বগুড়া জেলার সংবাদশাজাহানপুর

অসহায় বৃদ্ধা আঙ্গুরী বেগমের পাশে দাঁড়ালেন ইউএনও

শাজাহানপুর প্রতিনিধি জিয়াউর রহমানঃ আঙ্গুরী বেগম। বয়স ৬৫। ৩০ বছর আগে স্বামী তাকে ছেড়ে চলে গেছেন। বাবার বাড়িতে একখন্ড জমির উপর একটি টিনসেড মাটির ঘরে তার বসবাস। বাবা-মা, ভাই-বোন কেউ নাই। মানসিক প্রতিবন্ধি একমাত্র ছেলেকে নিয়ে অন্যের বাড়িতে চেয়েচিন্তে কোন রকমে জীবনধারণ করে আসছেন তিনি। কিছুদিন আগে শীলাবৃষ্টিতে তার ঘরের টিন ফুটা হয়ে গেছে। একটু বৃষ্টি হলেই পানি পড়ে বসবাসের অযোগ্য হয়ে যায়। অনেক রাত নির্ঘুম কাটছে তার। নুন আনতে পান্তা ফুরায় যার দু’বেলা পেটের ভাতই জোগাড় হয় না এমন অবস্থায় টিন পাবেন কোথায়। এমতাবস্থায় এই বৃদ্ধ বয়সে হঠাৎ করে গাইনী রোগে আক্রান্ত হয়েছেন তিনি। অঝর ধারায় শুরু হয়েছে ঋতুশ্রাব। সাথে প্রচন্ড ব্যথা। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্্েরর ডাক্তার বলেছেন পরিক্ষা-নিরিক্ষা করে দেখতে হবে। অপারেশন করা লাগতে পারে। অনেক টাকার প্রয়োজন। যিনি পেটের ভাতই যোগাড় করতে পারেন না তিনি চিকিৎসার টাকা পাবেন কোথায়। একদিকে মাথাগোজার ঠাই নেই, পেটে ভাত নেই তারউপর অসময়ে শারিরিক অসুস্থ্যতায় দিশেহারা হয়ে পড়েছেন এই অসহায় বৃদ্ধা।

আঙ্গুরী বেগম বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলার আশেকপুর ইউনিয়নের শাবরুল গ্রামের মৃত আসাদ আলীর মেয়ে। আস্তান শরীফ দাখিল মাদ্রাসার পাশেই তার ঘর।

এমতাবস্থায় বুধবার দুপুরে অসুস্থ্য শরির নিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার অফিসে আসেন তিনি। জানান তার কষ্টের জীবন কাহিনী। আবদার করেন সরকারী বরাদ্দে একটি মাথাগোজার ঠাই আর ছেলের জন্য প্রতিবন্ধি ভাতার কার্ড।

এসময় অসহায় বৃদ্ধার আকুতিতে মানসিক ভাবে বিচলিত হয়ে পড়েন নির্বাহী কর্মকর্তা আসিফ আহমেদ। তৎক্ষনাৎ চাল, ডালসহ চিকিৎসার জন্য আর্থিক সহায়তা প্রদান করেন তিনি। পাশাপাশি সরকারী বরাদ্দে ঘর ও প্রতিবন্ধি ছেলের জন্য ভাতার ব্যবস্থা করারও প্রতিশ্রুতি দেন তিনি।

আঙ্গুরী বেগম জানান, তার দুঃখ, দুর্দশার কথা স্থানীয় অনেককেই জানিয়েছেন। কিন্তু কেহই তার পাশে এসে সহায়তার হাত বাড়ায়নি।

নির্বাহী কর্মকর্তা আসিফ আহমেদ জানান, এরকম অসহায় মানুষ সমাজে এখনো বিদ্যমান। জমি আছে ঘর নাই আবার একেবারেই ভূমিহীন এই সমস্ত মানুষকে পুণর্বাসন করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকার নির্লস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। শুধু আঙ্গুরী বেগম নন একসময় তার মত কেহই এদেশে অভুক্ত থাকবে না।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

two × four =

Back to top button
Close