fbpx
শেরপুর

শেরপুরে ১৬৩ জন ভুমি ও গৃহহীন পেল পাকা বাড়ি

বগুড়া সংবাদ ডটকম (শেরপুর প্রতিনিধি কামাল আহমেদ)
আশ্রয়নের অধিকার, শেখ হাসিনার উপহার এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে সারাদেশের ন্যায় বগুড়ার শেরপুর উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে শনিবার (২৩ জানুয়ারি) সকালে সোয়া ১১টায় উপজেলার অডিটরিয়ামে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিডিও কনফারেন্সিং এর মাধ্যমে উদ্বোধনেরপর ভূমিহীন ও গৃহহীন ১০ জন ভূমিহীনদের দুই শতক জমির দলিল, নামজারি, জমির মালিকানা কবুলিয়ত নামা এবং ঘরের চাবি হস্তান্তর করেন বগুড়া জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো.আব্দুল মালেক।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লিয়াকত আলী শেখ, শেরপুর পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা আ’লীগের সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সাত্তার, বগুড়া বার অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি এডভোকেট গোলাম ফারুক, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মো.শাহজামাল সিরাজী, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নাসরিন আক্তার, উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবীব আম্বিয়া, শেরপুর শহর আ’লীগের সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা মকবুল হোসেন, সহকারী কমিশনার (ভূমি) সাবরিনা শারমিন, শেরপুর থানা অফিসার ইনচার্জ শহিদুল ইসলাম, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা শামছুন্নাহার শিউলি, প্রকল্পে নিয়োজিত টাস্কফোর্স কর্মকর্তা, পি আই এস এর সকল সদস্য, উপজেলা পরিষদের কর্মকর্তা, ইউনিয়নের চেয়ারম্যান, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রধান, বীর মুক্তিযোদ্ধা, গণমাধ্যমকর্মী এবং বিভিন্ন ইউনিয়নের প্রকল্পের সুবিধা ভোগীরা।
উল্লেখ্য, মুজিববর্ষে প্রধানমন্ত্রীর উদ্যোগে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের অধীনে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের ভূমিহীন “ক” শ্রেণির পরিবার পুনর্বাসনে ‘দুর্যোগ সহনীয় গৃহ নির্মাণ’ সাড়া দিয়ে ১টি করে ঘর নির্মাণের জন্য ১লক্ষ ৭১ হাজার টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। এখানে থাকছে, দুইটি ঘর, একটি চিকেন রুম, পাথরুম একটি পকেট রুম।
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার সামছুন্নাহার শিউলী বলেন, উপজেলার ৮টি ইউনিয়নে নির্মাণাধীন ১৬৩টি ঘরের জন্য শেরপুর উপজেলায় সর্বমোট ব্যায় ২ কোটি ৭৮ লক্ষ্য ৭৩ হাজার টাকা। ২০ ফুট বাই ২২ ফুট প্রস্থের জমির উপর রয়েছে দুটি সেমি-পাকা কক্ষ, রান্নাঘর, সংযুক্ত টয়লেট, ইউটিলিটি স্পেস, সামনে খোলা বারান্দা। ঘর এবং আশেপাশের জায়গা দিয়ে একটি পরিবারকে সুন্দর ভাবে বসবাস করতে পারবে। উপজেলায় ৮নং সুঘাট এবং ১০নং শাহ বন্দেগী ইউনিয়নে নিষ্কন্টক খাস জমি না পাওয়ায় “দুর্যোগ সহনীয় গৃহ নির্মাণ” ঘর বরাদ্ধ দেওয়া হয়নি। এ ব্যাপারে শেরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার লিয়াকত আলী সেখ জানান, জেলা প্রশাসকের সার্বিক দিকনির্দেশনায় প্রত্যেক সুবিধাভোগীর নামে ২ শতাংশ সরকারি খাস জমি বন্দোবস্ত প্রদানপূর্বক কবুলিয়ত দলিল রেজিস্ট্রেশন, নামজারি সম্পন্নকরণ ও গৃহ প্রদানের সনদ প্রদানসহ সকল কাজ সম্পন্ন। দ্রæত তালিকা অনুযায়ী উপকারভোগীদের মাঝে জমিসহ নির্মানকৃত ঘর গুলো বুঝিয়ে দেওয়া হবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

four × 3 =

Back to top button
Close