fbpx
শেরপুর

প্রতিটি নাগরিকের পুলিশের সেবাপ্রাপ্তির নিশ্চয়তা প্রদানের জন্য বিট পুলিশিং কার্যক্রম চালু করা হয়েছে

বগুড়া সংবাদ ডটকম ( শেরপুর প্রতিনিধি কামাল আহমেদ)
মানুষের দোরগোড়ায় পুলিশি সেবা পৌঁছে দিতে বগুড়ার শেরপুরে ‘বিট পুলিশিং’ কার্যক্রম শুরু হয়েছে। পুলিশকে আরও বেশি জনমুখি করতে এবং উভয়ের মধ্যে সম্পর্কোন্নয়নের মাধ্যমে অপরাধ নির্মূল করতেই এই বিট পুলিশিং কার্যক্রম চালু করা হয়। এছাড়া আইন শৃঙ্খলার উন্নয়ন, মানুষের ছোট-খাটো সমস্যার সমাধানসহ পুলিশ সদস্যরাই সেবা নিয়ে মানুষের কাছে যাওয়ার লক্ষ্যে গঠিত এই বিট পুলিশিং কার্যক্রম এই উপজেলার পৌরসভাসহ দশটি ইউনিয়নে প্রথমবারের মতো ছড়িয়ে দেয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। সেলক্ষ্যে সোমবার (১৭আগস্ট) উপজেলার ভবানীপুর ও কুসুম্বী ইউনিয়নে বিট পুলিশিং কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়। এরআগে পৌরসভা ছাড়াও উপজেলার মির্জাপুর, শাহবন্দেগী, গাড়ীদহ, খানপুর ইউনিয়নে এই কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (শেরপুর সার্কেল) মো. গাজিউর রহমান। আর ওইসব অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন শেরপুর উপজেলা কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির আহবায়ক স্থানীয় সরকারদলীয় এমপি পুত্র প্রকৌশলী আসিফ ইকবাল সনি। ভবানীপুর ইউনিয়ন পরিষদ প্রাঙণে আয়োজিত বিট পুলিশিং কার্যক্রম উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে শেরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মিজানুর রহমান মিজান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবিব আম্বীয়া, থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) এসএম আবুল কালাম আজাদ, কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সদস্য সচিব ফরহাদুজ্জামান শাহীন প্রমূখ বক্তব্য রাখেন। প্রধান অতিথির বক্তৃতায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. গাজিউর রহমান বলেন, প্রতিটি নাগরিকের পুলিশের সেবাপ্রাপ্তির নিশ্চয়তা প্রদানের জন্য বিট পুলিশিং কার্যক্রম চালু করা হয়েছে। জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে নিয়েই প্রত্যন্ত অঞ্চলে পুলিশি সেবা পৌঁছে দেয়া হবে। এতে করে স্থানীয় ছোট-খাটো সমস্যা, বিবাদ, সাধারণ ডায়েরিকরণ বিট পুলিশের স্থানীয় কার্যালয়ে বসেই সমাধান করা হবে। যাতে করে মানুষ দ্রæত পুলিশি সেবা পান। এছাড়া অপরাধীদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার আহবান জানিয়ে এই পুলিশ কর্মকর্তা আরও বলেন, পুলিশ আর জনতা এক হয়ে এই এলাকায় অপরাধমূলক কর্মকাÐ রুখতে হবে। সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, মাদক, জুয়া, বাল্যবিয়েসহ সব ধরণের অপরাধ কঠোরভাবে দমন করা হবে বলেও হুঁশিয়ারী দিয়ে সবাইকে তাদের ব্যাপারে তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করার আহবান জানান। অনুষ্ঠানে প্রকৌশলী আসিফ ইকবাল সনি এই অঞ্চলের উন্নয়নে নিজেকে উৎসর্গ করার ঘোষণা দিয়ে বলেন, জঙ্গি ও সন্ত্রাসীদের কোন দলীয় পরিচয় নেই। তারা কেবলই অপরাধী। তাই এখানে তাদের কোন স্থান হবে না। সমাজে বিশৃঙ্খলাকারীদের পুলিশ ও জনতা এক হয়ে রুখতে হবে। এজন্য সবধরণের সহযোগিতা এবং এই কার্যক্রমের সামনে থেকে কাজ করে যাবেন বলেও ঘোষণা দেন তিনি। বিষয়টি সম্পর্কে শেরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মিজানুর রহমান জানান, পুলিশের কার্যক্রম আরো জনমুখি ও জনবান্ধব করে গড়ে তোলার জন্য বিট পুলিশিংয়ের যাত্রা শুরু করা হয়েছে। ইতিমধ্যে এ উপজেলার পৌরসভাসহ বেশিরভাগ ইউনিয়নে বিট পুলিশিংয়ের কার্যালয় উদ্বোধন হয়েছে। প্রতিটি বিট পুলিশিং অফিসে একজন এসআই, একজন এএসআই ও কনস্টেবলের সমন্বয়ে এই কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। এই কার্যালয়ে বসেই এসব পুলিশ কর্মকর্তারা স্থানীয় ছোট-খাটো সমস্যা, বিবাদ-মিমাংসা ও সাধারণ ডায়েরী নথিভুক্ত করবেন। এছাড়া তারা সাধারণ মানুষের কাছ থেকে অভিযোগ গ্রহণ করবেন। একইসঙ্গে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবেন বলেও জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা। জানা যায়, বিট হলো একটি নির্দিষ্ট ভৌগোলিক এলাকা। পুলিশ অধীক্ষেত্রের একটি ছোট অংশকে বলা হচ্ছে বিট। এসব নির্দিষ্ট এলাকায় নির্দিষ্ট সংখ্যক পুলিশ সদস্যরা স্থায়ীভাবে দায়িত্ব পালন করবেন। আর এটিকেই বলা হচ্ছে বিট পুলিশিং কার্যক্রম।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

18 + 1 =

Back to top button
Close