fbpx
ধুনটবগুড়া জেলার সংবাদ

ধুনটে শিক্ষার্থী না থাকলেও পিইসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে তিনটি ভুয়া মাদ্রাসা : ২৪ পরীক্ষার্থী বহিস্কার

বগুড়া সংবাদ ডট কম (ধুনট প্রতিনিধি ইমরান হোসেন ইমন) : বগুড়ার ধুনট উপজেলায় কোন শিক্ষার্থী না থাকলেও শুধুমাত্র
জাতীয়করণের লোভে ভুয়া শিক্ষার্থী দিয়ে এবতেদায়ী শিক্ষা সমাপনীয় পরীক্ষায় অংশ নেয়ার অভিযোগ উঠেছে তিনটি নামসর্বস্ব মাদ্রাসার বিরুদ্ধে। মঙ্গলবার এ অভিযোগে ওই সকল মাদ্রাসার ২৪জন ভুয়া পরীক্ষার্থীকে কেন্দ্র থেকে বহিস্কার এবং ভুয়া শিক্ষার্থী দিয়ে পরীক্ষায় অংশ গ্রহনের অভিযোগে ওই প্রধান শিক্ষকদেরকে কারন দর্শানোর নোটিশ প্রদান করা হয়েছে। ধুনট উপজেলা শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, চলতি প্রাথমিক ও এবতেদায়ী শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় (পিইসি) ধুনট উপজেলার ১৯টি কেন্দ্রে ২০০টি সরকারি প্রাথমিক প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৬ হাজার ১০৩জন এবং ৫৯টি স্বতন্ত্র এবতেদায়ী মাদ্রাসার ৭৬৩জন শিক্ষার্থী অংশ নেয়। গত রবিবার পরীক্ষা শুরুর প্রথম দিন থেকেই ছাতিয়ানী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র ও ভান্ডারবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে প্রাথমিক ও এবতেদায়ী শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় অংশ নেয়া তিনটি এবতেদায়ী মাদ্রাসার ২৪ জন ভুয়া পরীক্ষার্থীর বিষয়ে অনুসন্ধান শুরু করেন ধুনট উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা কামরুল হাসান। এবিষয়ে সত্যতা মিললে মঙ্গলবার ওই দুটি কেন্দ্রে পরীক্ষায় অংশ নেয়া গোবিন্দপুর স্বতন্ত্র এবতেদায়ী মাদ্রাসার ১৫জন, রামপুরা স্বতন্ত্র এবতেদায়ী মাদ্রাসার ৩জন ও রঘুনাথপুর নয়াপাড়া স্বতন্ত্র এবতেদায়ী মাদ্রাসার ৬জন পরীক্ষার্থীকে বহিস্কার করা হয়। ওই সকল পরীক্ষার্থী সবাই ৭ম ও ৮ম শ্রেণীর ছাত্র। এদিকে ভুয়া পরীক্ষার্থীদের দিয়ে পরীক্ষায় অংশ গ্রহনের অভিযোগে গোবিন্দপুর স্বতন্ত্র এবতেদায়ী মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক মারুফ হোসেন, রামপুরা স্বতন্ত্র এবতেদায়ী মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক আমজাদ হোসেন ও রঘুনাথপুর নয়াপাড়া স্বতন্ত্র এবতেদায়ী মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক আব্দুল ওহাবকে কারন দর্শানোর নোটিশ প্রদান করা হয়েছে। তবে উপজেলার গোবিন্দপুর স্বতন্ত্র এবতেদায়ী মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক মারুফ হোসেন বলেন, এসব শিক্ষার্থী তথ্য গোপন করে পিইসি পরীক্ষায় ফরম পুরন করে পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল। এ বিষয়টি আমার জানা ছিল না। পরীক্ষা কেন্দ্র থেকে বহিস্কারের পর বিষয়টি জানতে পেরেছি। এবিষয়ে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা কামরুল হাসান জানান, তিনটি মাদ্রাসায় কোন শিক্ষার্থী না থাকলেও তারা বহিরাগত ৭ম ও ৮ম শ্রেণী পড়–য়া শিক্ষার্থী দিয়ে প্রাথমিক ও এবতেদায়ী শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল। একারনে ওই সকল প্রতিষ্ঠানের ২৪জন পরীক্ষার্থীকে কেন্দ্র থেকে বহিস্কার করা হয়েছে। ধুনট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাজিয়া সুলতানা বলেন, ভুয়া শিক্ষার্থী দিয়ে প্রাথমিক ও এবতেদায়ী শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় অংগ্রহন করায় তিনটি মাদ্রাসার প্রধানদের কারন দর্শানোর নোটিশ প্রদান করা হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

seventeen − 13 =

Back to top button
Close