বগুড়া জেলার সংবাদশেরপুর

শেরপুরে কৃষকদের মাঝে আমন ধানের শস্য বীমা দাবির চেক বিতরণ

বগুড়া সংবাদ ডটকম ( শেরপুর প্রতিনিধি কামাল আহমেদ) :  বগুড়ার শেরপুরে আমন ধানের শস্য বীমা দাবির চেক বিতরণ করা হয়েছে। রোববার (০৩নভেম্বর) দুপুরে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা গ্রাম উন্নয়ন কর্ম (গাক), সিনজেনটা ফাউন্ডেশন ফর সাসটেইনেবল এগ্রিকালচার এবং সুইস এজেন্সি ফর ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড কো-অপারেশন যৌথভাবে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের নির্বাহী পরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) খলিল আহমেদ। আর অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. গিয়াস উদ্দিন মিয়া। পৌরশহরের হাজীপুরপাড়াস্থ জেলা পরিষদ অডিটরিয়ামে গ্রাম উন্নয়ন কর্ম (গাক) এর প্রতিষ্ঠাতা ও নির্বাহী পরিচালক ড. খন্দকার আলমগীর হোসেনের সভাপতিত্বে ও সিনিয়র পরিচালক ড. মাহবুব আলমের সঞ্চালনায় শস্য বীমাদাবি প্রদান অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিগসেবে বক্তব্য রাখেন শেরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লিয়াকত আলী সেখ, শেরপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সারমিন আক্তার, সুইজারল্যান্ড দুতাবাসের ডেপুটি ডাইরেক্টর অব কো-অপারেশন ডেরেক জর্জ, গ্লোবাল ইন্স্যুরেন্স সলিউশন সিনজেনটা ফাউন্ডেশন ফর সাসটেইনেবল এগ্রিকালচার প্রোগ্রামের প্রধান মিস ওলগা স্পেকহাড ও কান্ট্রি ডিরেক্টর ফরহাদ জামিল, গ্রীন ডেল্টা ইন্সুরেন্স কোম্পানী লিমিটেডের অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও কোম্পানী সচিব সৈয়দ মঈনউদ্দিন আহমেদ, বাংলাদেশ মাইক্রো ইন্সুরেন্স মার্কেট ডেভেলপ প্রজেক্টের টিম লিডার পিটার ইপমা এবং সিনজেনটা ফাউন্ডেশন ফর সাসটেইনেবল এগ্রিকালচার প্রোগ্রামের প্রজেক্ট ম্যানেজার আমিনুল মুবিন প্রমূখ। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের নির্বাহী পরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) খলিল আহমেদ বলেন, শস্য উৎপাদনে জলবায়ু পরিবর্তনজনিত ঝুঁকি হ্রাসকল্পে কাজ করছে সরকার। এরই ধারাবাহিকতায় বগুড়ার শেরপুরে গাক’র দুইটি শাখা অফিসের মাধ্যমে আমন ধানের উপর শস্য বীমার একটি পাইলটিং করা হয়। কৃষকদের ক্ষতির হাত থেকে বাঁচাতে সারাদেশেই এই প্রোগ্রাম চালুর চিন্তা করছে সরকার। গ্রাম উন্নয়ন কর্ম (গাক) এর জনসংযোগ কর্মকর্তা ফরহাদুজ্জামান শাহী জানান, মাঠ পর্যায়ে কৃষকদের শস্য উৎপাদনে জলবায়ু পরিবর্তনজনিত ঝুঁকি হ্রাসকল্পে ‘সুরক্ষা’ প্রকল্পের আওতায় এই বীমাদাবি পরিশোধ করা হয়। বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা গ্রাম উন্নয়ন কর্ম (গাক), সিনজেনটা ফাউন্ডেশন ফর সাসটেইনেবল এগ্রিকালচার এবং সুইস এজেন্সি ফর ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড কো- অপারেশন যৌথভাবে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে। এই প্রকল্পের আওতায় গ্রীন ডেল্টা ইনস্যুরেন্স কোম্পানীর মাধ্যমে ৬৭৫জন কৃষক আমন ধানের জন্য শস্যবীমা গ্রহণ করেছিলেন। আবহাওয়া অধিদপ্তরের তথ্য-উপাত্তের উপর ভিত্তি করে শস্যবীমা ক্রয়কারী সকল কৃষক বীমা দাবীর আওতাভুক্ত হয়েছেন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

5 × 1 =

Back to top button
Close