বগুড়া জেলার সংবাদবিনোদনসাহিত্য

কাহালুতে ভারতের “সেথুয়া” নাটকের মধ্য দিয়ে শেষ হলো দুই বাংলার নাট্য উৎসব

বগুড়া সংবাদ ডট কম (সিজুল ইসলাম, বগুড়া) :বগুড়ার কাহালুতে উপজেলা অডিটোরিয়ামে কাহালু থিয়েটারের আয়োজনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে অনুষ্ঠিত দুই বাংলার নাট্য উৎসবের গতকাল শনিবার শেষ দিনে ভারতের মালদহ গাজোলের বিষাণ নাট্য সংস্থা শ্যামলতনু দাসগুপ্ত রচিত তাপস বন্দ্যোপাধ্যয় নির্দেশিত “সেথুয়া” নাটক মঞ্চায়ন সম্পন্ন করে।সেথুয়া অর্থ প্রতিবেশী। নাটকের গল্পে দেখা যায় গ্রামের হিন্দু এবং মুসলমান নেতারা নিজেদের স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য জমি অধিগ্রহণের ঘটনাকে খানিকটা আড়াল করতে সাধারণ মানুষের মধ্যে ধর্মীয় অনুভূতিতে উস্কানি দিয়ে মন্দির মসজিদ নিয়ে দাঙ্গা লাগিয়ে দেয়। এক পর্যায়ে একটি মুসলিম পরিবার উগ্র হিন্দুত্ববাদীদের তোপের মুখে পরে। বাড়িতে হামলা করে আগুন দিলে আহত অবস্থায় নিজ ভিটা ছেড়ে অন্য এক বাড়িতে আশ্রয় নেয় মুসলিম পরিবারটি। আশ্রয়দাতা মন্মোথের স্ত্রী খানিকটা অখুশি কেননা তারা হিন্দু আর আশ্রয় নেয়া জলিল এবং তার মেয়ে ফাতেমা মুসলমান। মন্মোথের হাতে জলিল তার মেয়ে ফাতেমাকে দেখাশুনার ভার দিয়ে মন্মোথের বাড়িতেই মারা যায় দাঙ্গায় একজন হিন্দু নেতাও মারা যায় যে কিনা এই অন্যায় অনাচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেছিল। হঠাৎ উগ্রবাদীরা শুধুমাত্র মুসলমানকে আশ্রয় দেবার জন্য মন্মোথের বাড়িতেও হামলা করে। গল্প এগোতে থাকে এবং পরবর্তীতে বিদ্বেষমূলক পরিস্থিতির অবসান হয়। সবাই বুঝতে পারে হিন্দু মুসলমান যেটাই যার ধর্ম হোক না কেন সবাই আসলে মানুষ। মানবতার উপর আর কিছু হয়না। আমাদের সবার রক্ত লাল এক আকাশের নিচেই সবার বসবাস। মনুষ্যত্বের জয় হয়।নাটকের বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেন সুবীর ঠাকুর, গদাধর রায়, তাপস বন্দ্যোপাধ্যয়, সাধন ঠাকুর,  উত্তম কুন্ডু, শ্যামলী ব্যানার্জী, টুম্পা ঠাকুর, উৎপল সাহা, কৃষ্ণ সরকার এবং  রাজকুমার কুন্ডু। আলোক প্রক্ষেপণ করেছেন উত্তম কুন্ডু এবং তাপস দাস। আবহ সঙ্গীতে ছিলেন চিরদীপ সরকার। রূপসজ্জা শ্যামলী ব্যানার্জী এবং সুনীল রায়। মঞ্চসজ্জায় গুপীনাথ দাস।শেষ দিনের আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন কাহালু থিয়েটারের সভাপতি আব্দুল হান্নান। অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কাহালু উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ লালু, বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রাগেবুল আহসান রিপু,  বাংলাদেশ গ্রাম থিয়েটারের সাধারণ সম্পাদক তৌফিক হাসান ময়না, রোকেয়া অঞ্চলের সমন্বয়কারী জুলফিকার চঞ্চল, পুণ্ড্র অঞ্চলের সমন্বয়কারী মিজানুর রহমান, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট বগুড়ার সাধারণ সম্পাদক আবু সাঈদ সিদ্দিকী। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন কাহালু থিয়েটারের সাধারণ সম্পাদক শাহাজাদ আলী বাদশা। নাটক মঞ্চায়ন শেষে অনুভূতি প্রকাশ করেন সেথুয়া নাটকের নির্দেশক ও দলপতি তাপস বন্দ্যোপাধ্যয়। তিনি এসময় আগামী ডিসেম্বরের ২৪ তারিখ বিষাণ নাট্য উৎসবে আমন্ত্রণ জানায়। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন মুনসুর রহমান তানসেন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

one × 1 =

Back to top button
Close