আদমদিঘিবগুড়া জেলার সংবাদ

সান্তাহারে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী নারীকে গণ ধর্ষন ॥ হাসপাতালে ভর্তি

বগুড়া সংবাদ ডট কম (আদমদীঘি প্রতিনিধি সাগর খান) :রবিবার রাতে বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার সান্তাহার পৌর শহরের তিয়রপাড়া নামক স্থানে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী এক নারীকে একদল বখাটে যুবক ভ্যান থেকে নেমে নিয়ে গণ ধর্ষন করেছে। এক মেয়ে সন্তানের মা ধর্ষিতা ওই নারীকে মুমুর্ষ অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশ একজনকে আটক করেছে। ধর্ষিতার চাচা সান্তাহার ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ফেরদৌস আলী জানান, তার বড় ভাই শহিদুল ইসলাম তার পরিবার পরিজন নিয়ে সান্তাহার রেলওয়ে ইয়ার্ড কলোনীতে বসবাস করেন। শহিদুলের স্বামী পরিত্যক্তা মেয়ে (২০) শহরের শখের পল্লী নামক বিনোদন কেন্দ্রে পান-সিগারেটসহ বিভিন্ন পণ্যের দোকান দিয়ে ক্ষুদ্র ব্যবসা করে জীবিকা নির্বাহ করেন। রবিবার সন্ধায় সে দোকান বন্ধ করে চাচাতো ভাই সুজন আলীকে সাথে নিয়ে শহর পাশের কাশিমালা গ্রামে তার অসুস্থ্য ফুফুকে দেখতে যাচ্ছিল। তাদের বহন করা ভ্যান সন্ধা সাতটার দিকে শহরের তিয়রপাড়া খাড়ীর ব্রিজে পৌঁছা মাত্র সেখানে অবস্থান করা ১২ থেকে ১৪জন বখাটে যুবক ভ্যান আটকিয়ে যাত্রী সুজন এবং ভ্যান চালক রকিকে ধরে টাকা ও মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়। এর পর মারপিট শুরু করলে তারা পালিয়ে যায়। এর পর ওই বখাটেরা ভ্যানের অপর যাত্রী ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী নারীর নিকট থেকে কয়েক হাজার টাকা ও মোবাইল ছিনিয়ে নেয়ার পর ভ্যান থেকে টেনে হিঁচরে নেমে নিয়ে খাল পাড়ের নির্জন স্থানে গিয়ে পালাক্রমে ধর্ষন করে। রাত সাড়ে ১০টার দিকে অজ্ঞাত পরিচয়ের ব্যক্তির ফোনের মাধ্যমে খবর পেয়ে ওই নারীর স্বজনরা রাতের আধাঁরে ওই স্থানে খোজাখুশি শুরু করে। রাত সাড়ে ১২টার দিকে দমদমা গ্রামের নিকট খালের বাঁধ থেকে ওই নারীকে অসুস্থ্য অবস্থায় উদ্ধার করে। পরে এক পল্লী চিকিৎসকের মাধ্যমে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে নওগাঁ আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করে দেয়। সে বর্তমানে ওই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এ রিপোর্ট পাঠানো সময় পর্যন্ত আদমদীঘি থানায় মামলা হয়নি। তবে মামলার প্রস্তুতি চলছিল। সান্তাহার পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ আনিছুর রহমান বলেন, একজনকে আটক করা হয়েছে। তিনি মামলার তদন্ত ও ঘটনার সাথে জড়িত অপর অপরাধীদের আটকের স্বার্থে আটক যুবকের পরিচয় জানাতে অপারগতা প্রকাশ করেছেন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

thirteen − five =

Back to top button
Close