নন্দীগ্রামবগুড়া জেলার সংবাদ

নন্দীগ্রামে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন, পিস্তলগুলিসহ গ্রেপ্তার ১

বগুড়া সংবাদ ডট কম (নন্দীগ্রাম প্রতিনিধি মোঃ এফকে সরকার) : বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলার ভাটগ্রাম ইউনিয়নের বর্ষন চেচুয়াপাড়া গ্রামে শনিবার (০৩ আগষ্ট) থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। শুক্রবার সন্ধ্যায় দুইজন গুলিবিদ্ধ হওয়ার পর গ্রামে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। গ্রামবাসী একজনকে আটক করে গনধোলাই দিয়ে পুলিশে দেয়। এরপর তার মটরসাইকেল পুড়িয়ে দেয়া ছাড়াও প্রতিপক্ষের বাড়িতে আগুন দিতে গেলে পুলিশ বাধা দেয় এক পর্যায় তারা কয়েকটি খড়ের গাদায় আগুন দেয়। জানা গেছে, বর্ষন চেচুয়া পাড়া গ্রামের হায়দার আলী খুন হয় ২০১২ সালের ১২ ডিসেম্বর। ওই মামলার আসামী আনোয়ার হোসেন শাহীন সম্প্রতি জামিনে বের হয়। এরপর হায়দার হত্যা মামলার বাদী আব্দুল গফুর ও তার ভাই ভাতিজারা গত বুধবার (৩১ জুলাই) রাতে আনোয়ার হোসেনকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে হাত-পা ভেঙ্গে দেয়। এ ঘটনায় শাহীনের বাবা শামছুল হক বাদী হয়ে হায়দার হত্যা মামলার বাদী গফুরসহ তার পরিবারের ৯ জনের নামে থানায় মামলা করে। এঘটনার একদিন পর শুক্রবার সন্ধ্যায় গফুরের জামাতা আব্দুস সালাম তিনটি মটরসাইকেল যোগে কয়েকজন যুবক চেচুয়া পাড়া গ্রামে গিয়ে হায়দার হত্যা মামলার অন্যান্য আসামীদের খুজতে থাকে। গ্রামের লোকজন তাদেরকে চ্যালেঞ্জ করলে তারা গুলি করেন। এতে জামাল ও পুটু মিয়া নামের দুইজন গুলিবিদ্ধ হন। এসময় গফুরের জামাতা আব্দুস সালাম পিস্তল সহ গ্রামবাসীর হাতে ধরা পড়ে। পুড়িয়ে দেয়া হয় তার মটরসাইকেল। এরপর থেকেই পাল্টে যায় গ্রামের চিত্র। হত্যা মামলার বাদী গফুরসহ তার ভাই ভতিজাদের ৪ টি পরিবার বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়ে যায়। গ্রামবাসী তাদের বাড়িতে আগুন দেয়ার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়ে কয়েকটি খড়ের গাদায় আগুন দেয়। এর পর থেকেই সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়। পিস্তলসহ গ্রেপ্তারকৃত আব্দুস সালামের নামে পুলিশ বাদী হয়ে অস্ত্র আইনে মামলা করেন।
নন্দীগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শওকত কবির বলেন, চেচুয়াপাড়ায় সহিংসতা এড়াতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। জামাল ও পুটু মিয়া গুলিবিদ্ধ হওয়ার ঘটনায় আরো একটি মামলা হবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

two × 3 =

Back to top button
Close