বগুড়া সংবাদ ডট কম (কাহালু প্রতিনিধি এম এ মতিন) : রোববার বিকেলে বগুড়ার কাহালু ঐতিহাসিক রেলওয়ে বটতলায় হৃদয়ে কাহালু শাখার আয়োজনে ৬ দফা দাবী বাস্তবায়নের লক্ষ্যে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন সেফগার্ড কেজি স্কুলের সহকারী শিক্ষক নূরুন্নাহার বেগম (নাহার)। উক্ত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কাহালু সেফগার্ড কেজি স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক, কাহালু ইউসিসিএলিঃ এর চেয়ারম্যান, উপজেলা নাগরিক কমিটির সভাপতি ও কাহালু উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি মোঃ কামাল উদ্দিন কবিরাজ। প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে ৬ দফা দাবী দ্রুত বাস্তবায়নের জন্য জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকারেরর প্রতি আহবান জানান। ৬ দফা দাবী সমূহ হলো (১) কাহালুতে টেকনোক্র্যাট কোটায় মন্ত্রী চাই : (১৯৫৪, ১৯৭০, ১৯৭৩, ১৯৭৯, ১৯৮৬, ১৯৮৮, ১৯৯১, ১৯৯৬, ২০০১, ২০০৮, ২০১৪, ২০১৮ সাল) পর্যন্ত কোন সংসদ নির্বাচনে কাহালু উপজেলার কোন ব্যক্তিই নৌকা প্রতীক নিয়ে পদপ্রার্থী হননি বা কোন প্রার্থীকে নৌকা প্রতীকে মনোনয়ন দেওয়া হয়নি। দীর্ঘ ৬৪ বছরে উন্নয়নের মহাসড়ক থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়া অবহেলিত,উন্নয়ন বঞ্চিত কাহালুবাসীকে উন্নয়নের ধারায় সম্পৃক্ত করতে এবং হতাশাগ্রস্ত নেতাকর্মীদের উজ্জীবিত করতে এলাকার একজনটেকনোক্র্যাট কোটায় মন্ত্রী চাই। (২) প্রশাসনের সকল প্রকার দূর্নীতি বন্ধ করতে হবে। (৩) সকল প্রকার রাস্তা উন্নয়ন করতে হবেঃ কাহালু হতে বগুড়া রেল লাইনের পাশ দিয়ে যাওয়া প্রধান রাস্তা সহ কাহালু উপজেলার বিভিন্ন রাস্তা সংস্কার ও নতুন রাস্তা নির্মান করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়নের মহাসড়কে অবহেলিত কাহালবাসীকে সম্পৃক্ত করতে হবে। (৪) কৃষকদের উৎপাদিত কৃষি পণ্যের ন্যায্য মূল্য দিতে হবেঃ কৃষি প্রধান কাহালু উপজেলায় সারা বছর কৃষকেরা ইরি,বোরো, রবিশস্যসহ বিভিন্ন কৃষিজ পন্য উৎপাদন করে। উৎপাদিত পণ্যের ন্যায্য মূল্য না পাওয়ায় মানুষ কৃষি হতে বিমুখ হয়ে অন্যান্য পেশায় গিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। উৎপাদিত কৃষিজ পণ্যের ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত করলে কাহালু উপজেলা আরও উন্নত হবে। (৫) সমাজ থেকে মাদক ও সন্ত্রাস বন্ধ করতে হবেঃ মাদক পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্রকে ধ্বংস করে এটা কারোরই অজানা নয়। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আহবানে “মাদকের বিরুদ্ধে, চলো যাই যুদ্ধে” এই শ্লোগানে কাহালুবাসীকে সঙ্গে নিয়ে মাদক ও সন্ত্রাস মুক্ত কাহালু গড়তে প্রশাসনকে উদ্যোগ নিতে হবে। (৬) সমাজ থেকে সকল প্রকার দাদন (সুদ) ব্যবসা বন্ধ করতে হবেঃ সুদ, কারেন্ট সুদ আর দাদন ব্যবসার কারণে কাহালুর মানুষ অর্থনৈতিক ভাবে দূর্বল হয়ে যাচ্ছে। ফলে তারা বিভিন্ন অসামাজিক কাজে লিপ্ত হচ্ছে। দাদন (সুদ) ব্যবসার কারণে নিঃস্ব হতে বসা কাহালুবাসীকে বাঁচাতে দাদন ব্যবসায়ীদের গ্রেফতার করে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।
উক্ত আলোচনা সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন কাহালু সেফগার্ড কেজি স্কুলের সহকারী শিক্ষক সঞ্চিতা রাণী পাল, আব্দুল মান্নান, সাবেক ছাত্রলীগনেতা ইমরান আলী, ইউনিভাসিটি ল্যাবরেটরী কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি আরিফ ইশতিয়াক রাহুল প্রমূখ।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন