বগুড়া সংবাদ ডট কম : কবি মাকিদ হায়দারের ৭১তম জন্মদিন উপলক্ষে বগুড়া লেখক চক্র আয়োজন করে ‘যে আমাকে দুঃখ দিলো, সে যেন আজ সুখেই থাকে’ নামে এক অনুষ্ঠানের। বগুড়া উডবার্ণ পাবলিক লাইব্রেরি মিলনায়তনে গতকাল শুক্রবার বিকাল ৫ টায় শুরু হয় কবির জন্ম উৎসবের। উৎসব শুরুতেই কবির সম্প্রতি প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ ‘অদৃশ্য মুখগুলো’র মোড়ক উন্মোচন করা হয় এবং কবিতা নিয়ে নিয়ে আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়।
মোড়ক উন্মোচন ও কবিতা নিয়ে আলোচনা পর্বে সভাপতিত্ব করেন কবি-প্রাবন্ধিক শোয়েব শাহরিয়ার এবং স্বাগত বক্তব্য দেন বগুড়া লেখক চক্রের উপদেষ্টা এ্যাড. পলাশ খন্দকার। কবির জন্ম উৎসবে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বগুড়া লেখক চক্রের উপদেষ্টা মুহম্মদ শহীদুল্লাহ। আলোচনা ও সমাপনী পর্বে সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কবি প্রাবন্ধিক খৈয়াম কাদের, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট, বগুড়ার সভাপতি নাট্যজন তৌফিক হাসান ময়না, বিআইআইটি’র প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ প্রকৌশলী সাহাবুদ্দীন সৈকত, সংশপ্তক থিয়েটারের সাধারণ সম্পাদক নাট্যজন সাদেকুর রহমান সুজন ও বগুড়া সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক জে এম রউফ।
সমাপনী পর্বে সভাপতিত্ব করেন শিবগঞ্জ এম এইচ ডিগ্রী কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ অধ্যাপক আব্দুল মান্নান এবং ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন সংগঠনের সভাপতি কবি ইসলাম রফিক। সংগঠনের পক্ষ থেকে কবিকে শুভেচ্ছা স্মারক এবং বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা প্রদান করা হয়। আবৃত্তি পর্বে কবির কাব্যগ্রন্থ থেকে আবৃত্তি করেন আরিফ হায়দার, শরীফ মজুমদার, রাকিব জুয়েল, অলোক পাল এবং জান্নাতুল ফেরদৌস তৃষা। মোড়ক উন্মোচিত কবির কাব্যগ্রন্থ থেকে কবিতা থেকে পাঠ করেন সাদেকুর রহমান সুজন, মেহেরুল সুজন, শাহানুর শাহীন, আবু বকর সিদ্দিক, এস এম আনিছুর রহমান। নিবেদিত কবিতা পাঠ করেন কামরুন নাহার কুহেলী, আমির খসরু সেলিম, মাহবুবা পারভীন, রুমানা শারমিন। জন্ম উৎসবের বিভিন্ন পর্বে উপস্থাপনা করেন কামরুন নাহার কুহেলী, এস এম আনিছুর রহমান ও শাহানুর শাহীন। সবশেষে কেক কেটে কবির জন্ম উৎসবের সমাপ্তি ঘোষনা করা হয়।

উল্লেখ্য কবি মাকিদ হায়দার ১৯৪৭ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর পাবনার দোহারপাড়ায় জন্মগ্রহন করেন। তার পিতার নাম মোহাম্মদ শেখ হাকিম উদ্দিন এবং মাতা রহিমা খাতুন। তার প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ-রোদে ভিজে বাড়ী ফেরা, আপন আঁধাওে একদিন, ও পার্থ ও প্রতিম, কফিনের লোকটি, প্রিয় রোকোনালী, যে আমাকে দুঃখ দিলো সে যে আজ সুখেই থাকে। গল্পগ্রন্থ-বিপরীতে অন্য কেউ। কবিতার জন্য পেয়েছেন বগুড়া লেখক চক্র পুরস্কার, কবিকুঞ্জ পুরস্কারসহ অন্যান্য পুরস্কার।
কবি মাকিদ হায়দারের ৭১তম জন্মদিন উপলক্ষে বগুড়া লেখক চক্র আয়োজন করে ‘যে আমাকে দুঃখ দিলো, সে যেন আজ সুখেই থাকে’ নামে এক অনুষ্ঠানের। বগুড়া উডবার্ণ পাবলিক লাইব্রেরি মিলনায়তনে গতকাল শুক্রবার বিকাল ৫ টায় শুরু হয় কবির জন্ম উৎসবের। উৎসব শুরুতেই কবির সম্প্রতি প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ ‘অদৃশ্য মুখগুলো’র মোড়ক উন্মোচন করা হয় এবং কবিতা নিয়ে নিয়ে আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়।
মোড়ক উন্মোচন ও কবিতা নিয়ে আলোচনা পর্বে সভাপতিত্ব করেন কবি-প্রাবন্ধিক শোয়েব শাহরিয়ার এবং স্বাগত বক্তব্য দেন বগুড়া লেখক চক্রের উপদেষ্টা এ্যাড. পলাশ খন্দকার। কবির জন্ম উৎসবে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বগুড়া লেখক চক্রের উপদেষ্টা মুহম্মদ শহীদুল্লাহ। আলোচনা ও সমাপনী পর্বে সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কবি প্রাবন্ধিক খৈয়াম কাদের, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট, বগুড়ার সভাপতি নাট্যজন তৌফিক হাসান ময়না, বিআইআইটি’র প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ প্রকৌশলী সাহাবুদ্দীন সৈকত, সংশপ্তক থিয়েটারের সাধারণ সম্পাদক নাট্যজন সাদেকুর রহমান সুজন ও বগুড়া সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক জে এম রউফ।
সমাপনী পর্বে সভাপতিত্ব করেন শিবগঞ্জ এম এইচ ডিগ্রী কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ অধ্যাপক আব্দুল মান্নান এবং ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন সংগঠনের সভাপতি কবি ইসলাম রফিক। সংগঠনের পক্ষ থেকে কবিকে শুভেচ্ছা স্মারক এবং বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা প্রদান করা হয়। আবৃত্তি পর্বে কবির কাব্যগ্রন্থ থেকে আবৃত্তি করেন আরিফ হায়দার, শরীফ মজুমদার, রাকিব জুয়েল, অলোক পাল এবং জান্নাতুল ফেরদৌস তৃষা। মোড়ক উন্মোচিত কবির কাব্যগ্রন্থ থেকে কবিতা থেকে পাঠ করেন সাদেকুর রহমান সুজন, মেহেরুল সুজন, শাহানুর শাহীন, আবু বকর সিদ্দিক, এস এম আনিছুর রহমান। নিবেদিত কবিতা পাঠ করেন কামরুন নাহার কুহেলী, আমির খসরু সেলিম, মাহবুবা পারভীন, রুমানা শারমিন। জন্ম উৎসবের বিভিন্ন পর্বে উপস্থাপনা করেন কামরুন নাহার কুহেলী, এস এম আনিছুর রহমান ও শাহানুর শাহীন। সবশেষে কেক কেটে কবির জন্ম উৎসবের সমাপ্তি ঘোষনা করা হয়।

উল্লেখ্য কবি মাকিদ হায়দার ১৯৪৭ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর পাবনার দোহারপাড়ায় জন্মগ্রহন করেন। তার পিতার নাম মোহাম্মদ শেখ হাকিম উদ্দিন এবং মাতা রহিমা খাতুন। তার প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ-রোদে ভিজে বাড়ী ফেরা, আপন আঁধাওে একদিন, ও পার্থ ও প্রতিম, কফিনের লোকটি, প্রিয় রোকোনালী, যে আমাকে দুঃখ দিলো সে যে আজ সুখেই থাকে। গল্পগ্রন্থ-বিপরীতে অন্য কেউ। কবিতার জন্য পেয়েছেন বগুড়া লেখক চক্র পুরস্কার, কবিকুঞ্জ পুরস্কারসহ অন্যান্য পুরস্কার।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন