বগুড়া সংবাদ ডট কম (সিজুল ইসলাম, বগুড়া) : সেতারে মুগ্ধ হলেন বগুড়ার দর্শক শ্রোতা। উপস্থিত হয়েছিলেন বগুড়ার সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক এবং পেশাজীবী সংগঠনের কর্মী সংগঠকরা। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭ টা থেকে টিএমএসএস মহিলা মার্কেটের গোধূলী অডিটোরিয়ামে ম্যাক্স মিউজিক্যাল হাট এর আয়োজনে কলেজ থিয়েটারের ব্যবস্থাপনায় যন্ত্রসংগীত সন্ধ্যা “লয়” এর ২য় পর্ব অনুষ্ঠিত হয়। এটা ছিল ম্যাক্স মিউজিক্যাল হাট এর ২য় আয়োজন। এবছর যন্ত্রসংগীত সন্ধ্যায় সেতার পরিবেশন করেন দেশের বিশিষ্ট সেতার বাদক ছায়ানটের সেতারগুরু এবাদুল হক সৈকত এবং তাঁকে তবলায় সংগদ করেন তবলার আরেক প্রতিথযসা বাদনশিল্পী অশোক পাল।
এবাদুল হক সৈকত শ্রী মদন গোপাল দাসের কাছে তবলা শিক্ষার মাধ্যমে সংগীত জীবন শুরু করলেও ১৯৯২ সালে ছায়ানটের খুরশীদ খানের নিকট প্রথম সেতারের পাঠ গ্রহণ শুরু করেন মাঝে সঙ্গীতাচার্য পন্ডিত অজয় সিংহ রায়, পন্ডিত দীপক চৌধুরী, পন্ডিত কার্তিক শেষাদ্রী এবং বর্তমানে পন্ডিত দেবপ্রসাদ চক্রবর্তীর নিকট তালিম নিচ্ছেন। ১৯৯৫ সালে ভারত সরকারের বৃত্তি লাভ করে সেনীয়া মাইহার ঘরানার বাদন শৈলীতে রবীন্দ্র ভারতী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রী লাভ করেন। বগুড়ায় তিনি গৌর মাজহারের আলাপ জোড়, রুপক তালের গাৎ, রাগ বিহাগ বিলম্বিত, দ্রুত ত্রিতাল এবং ঝালা বাদন পরিবেশন করেন। সেতার নিয়ে তাঁর পরিকল্পনার কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন, বাংলাদেশে বিশ্ববিদ্যালয়ে আলাদা করে কাজ করার ইচ্ছা থাকলেও সরকারি পৃষ্ঠপোষকতার অপ্রতুলতা এবং যথাযথ কর্তৃপক্ষের সদিচ্ছার অভাবে তা করা সম্ভব হচ্ছে না। তবে তিনি তাঁর জীবদ্দশায় এটি করে যাবার জন্য সর্বাত্নক চেষ্টা করবেন বলে ইচ্ছা প্রকাশ করেন।
এর আগে বগুড়া কলেজ থিয়েটারের এক সময়কার সহসভাপতি এবং বগুড়া থিয়েটারের নাট্যযোদ্ধা পৌষরাম সরকারের একক তবলা বাদনে হারমোনিয়ামে তাঁকে সংগদ করেন অভিজিৎ কুন্ডু।
অনুষ্ঠানের শুরুতে যন্ত্রশিল্পীদের ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান কলেজ থিয়েটারের নাট্যকর্মী রুহি তাবাসসুম, সঞ্চয়িতা সরকার বীথি, নিহারিকা জুই, জেরিন খান। শিল্পীদের জীবনী পাঠ করেন থিয়েটার আইডিয়ার পরিচালক নিভা রাণী সরকার, নাট্যকর্মী মিতু রায় এবং আবৃত্তিশিল্পী কনক কুমার পাল অলক।
অনুষ্ঠান শেষে অনুভূতি প্রকাশ করতে মঞ্চে উপস্থিত হোন আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন স্কুল এন্ড কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ প্রবন্ধকার ও কবি সোয়েব শাহরিয়ার, সম্মিলিতি সাংস্কৃতিক জোট বগুড়ার সভাপতি তৌফিক হাসন ময়না, বাঙ্গালী সংস্কৃতি পরিষদের সভাপতি রাগেবুল হাসান রিপু, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ বগুড়ার সভাপতি ডাঃ সামির হোসেন মিশু। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন ম্যাক্স মিউজিক্যাল হাট এর আহবায়ক সাকলাইন বিটুল। বক্তব্য শেষে যন্ত্রশিল্পীদের হাতে শুভেচ্ছা স্মারক হিসেবে সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেন বগুড়ার গুণীজনরা। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন নাট্যভিনেতা এবং আবৃত্তিশিল্পী কনক কুমার পাল অলক।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন