বগুড়া সংবাদ ডটকম (আনোযার হোসেন, নামুজা প্রতিনিধি): বগুড়া সদরের নামুজা ইউনিয়নে ইউপি সদস্য কর্তৃক ৪০ দিনের মাটিকাটার কর্মসূচির টাকা আত্নসাত করার অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, নামুজা ইউপির ভান্ডারী পাড়া গ্রামের আকবর আলীর পুত্র আব্দুল মান্নান কর্তৃক বাদী হয়ে বগুড়া উপ-পরিচালক দূর্নীতি দমন কমিশন জেলা কার্যালয়, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসারসহ বিভিন্ন মহলে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের বর্ণনা আব্দুল মান্নান, পিতা-মৃত আকবর আলী মোল্লা, সাং-নামুজা ভান্ডারীপাড়া, থানা ও জেলা বগুড়া। সে অত্যন্ত গরীব লোক হওয়ায় নামুজা ইউনিয়ন পরিষদ থেকে হতদরিদ্রের জন্য সরকারি ৪০দিনের মাটিকাটা প্রকল্পের আওতাধীন একজন সদস্য করা হয়। উক্ত প্রকল্পে মান্নান সদস্য হওয়ার সরকারি নিয়ম অনুযায়ী সোনালী ব্যাংক লিমিটেড নামুজাহাট শাখায় মান্নান নামে একটি হিসাব নাম্বার খুলা হয়। প্রকল্পের কাজ করিয়া প্রথম কিছুদিন তিনি উক্ত হিসাব নাম্বার থেকে টাকা উত্তোলন করিয়াছে। কিন্তু ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে কাজ শুরু করিয়া মার্চ-২০১৮ সালে মোট ২১ দিন কাজ হয়। পরবর্তীতে মে-জুন/২০১৮ সাল পর্যন্ত ২৫দিন কাজ হয়। উপরোক্ত কাজের দুই পর্বে তিনি কোন কাজ করেনি এবং ব্যাংক থেকে কোন টাকা উত্তোলন করেনি। মান্নানের অভিযোগ, নামুজা ইউপির ভান্ডারীপাড়া গ্রামের মৃত বয়ান উদ্দিনের পুত্র ১নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য লুৎফর রহমান ও একই ওয়ার্ডের আব্দুর রহিমের স্ত্রী মহিলা ইউপি সদস্যা মোর্শেদা বিবি পরস্পর যোগসাজস করিয়া মান্নানের স্বাক্ষর জাল করিয়া ব্যাংক থেকে মাটি কাটার প্রকল্পের ৭ হাজার ১৭৫ টাকা ও একই গ্রামের মৃত জুড়ানু’র পুত্র মহাসিন আলীর স্বাক্ষর জাল করিয়া তার নামে ১১ হাজার ৩৭৫ টাকা সরকারি প্রকল্পের অর্থ আত্নসাতৎ করিয়াছে। এব্যাপারে ১১ জুন ইউপি সদস্য লুৎফর রহমানের নিকট জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান, ঘটনাটি সঠিক না প্রতি হিংসার বশিভূত হয়ে এসব করছে। এছাড়াও ইউপি সদস্যা মোর্শেদা বিবি’র নিকট জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান, আমি এব্যাপারে কিছুই জানিনা।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন