এস আই সুমনঃ মহাস্থান(বগুড়া)প্রতিনিধিঃ বগুড়া পৌরসভার ১৫ নং ওয়ার্ড এর অন্তর্গত ছোটকুমিড়া এলাকায় অদ্যই শনিবার রাত্রি অনুমান ১০ টার দিকে মাদকাসক্ত পুত্রের বার্মিজ চাকুর আঘাতে নির্মমভাবে খুন হয় পিতা আব্দুর রশিদ (৫৮)। সে ছোটকুমিড়া পশ্চিমপাড়া এলাকার মৃত ইয়াছিন আলীর পুত্র। গ্রেফতার হওয়া ঘাতক পুত্রের নাম স্বপন ওরফে সুটকু (১৯)। সে পেশায় স্থানীয় একটি গ্রীলের দোকানে কাজ করলেও মাদকাসক্ত বলে জানা গেছে।
পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, ঘাতক পুত্র স্বপন ওরফে সুটকু প্রতিনিয়ত মাদক সেবন করতো এবং বখাটে ছেলেদের সাথে মেলামেশা করতো। যা তার পিতা সহ পরিবারের সবার অপছন্দনীয় ছিলো। মাঝে মধ্য সে পিতার কাছে মাদক কেনার জন্য চাপ প্রয়োগ করতো। এ নিয়ে পিতা পুত্রের মাঝে ঝগড়া বিবাদ ও কথা কাটাকাটি লেগেই থাকতো। এরই ধারাবাহিকতায় এলাকার একটি স্থানে অদ্যই রাতে ঘাতক পুত্র স্বপন মাদকসেবীদের সাথে আড্ডা ও মাদক সেবনের সময় তার পিতা আব্দুর রশীদ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে তাকে জোর করে বাড়িতে নিয়ে আসার সময় কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে মাদকাসক্ত স্বপন তার কাছে থাকা বার্মিজ চাকু দিয়ে পিতাকে ছুরিকাঘাত করে এবং পালিয়ে যায় । এসময় আহতের চিৎকারে লোকজন এসে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়ার সময় তার মৃত্যু হয়।
এদিকে বগুড়া জেলা পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভূইয়ার নির্দেশে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে উপশহর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ইন্সপেক্টর শফিকুল ইসলাম এর নেতৃত্বে এস আই আব্দুল গফুর, এএসআই মহুবার রহমান, এএসআই মেহেদী হাসান ও এটিএসআই সোহেল রানা সহ উপশহর ফাঁড়ি টিম আসামী স্বপনকে ধরতে অভিযানে নামে। এবং ঘটনা ঘটার মাত্র আধা ঘন্টার মধ্যই রাত্রি অনুমান সোয়া ১১টার দিকে হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত বার্মিজ চাকু সহ চারমাথা এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে। হত্যাকান্ডের আধা ঘন্টার মধ্যই ঘাতক পুত্র স্বপন ওরফে সুটকুকে গ্রেফতার করায় বগুড়া পুলিশ সুপার মোঃ আলী আশরাফ ভুঁইয়া ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সনাতন চক্রবর্তি সহ বগুড়া পুলিশ বিভাগকে এলাকাবাসী অভিনন্দন জানান এবং সেই সাথে আটককৃত স্বপনের ফাঁসির দাবী জানিয়েছেন।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন