fbpx
শেরপুর

শেরপুরে পৌর আওয়ামীলীগ নেতাকে নৃশংসভাবে কুপিয়ে হত্যা

শেরপুর (বগুড়া) সংবাদদাতা
বগুড়ার শেরপুরে পৌর আওয়ামীলীগ নেতা মর্তুজা কাওসার অভিকে (৩২) নৃশংসভাবে কুপিয়ে হত্যা করেছে সন্ত্রাসীরা। গত ২৮ সেপ্টেম্বর বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টায় শেরপুর উপজেলা পরিষদ সংলগ্ন মোটর গ্যারেজের পার্শ্বে এ ঘটনা ঘটে। নিহত অভি শেরপুর পৌর শহরের খন্দকার পাড়া এলাকার মৃত হোসাইন কাওসার ফুয়াদের ছেলে। তিনি পৌর আওয়ামীলীগের প্রস্তাবিত কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন।

শেরপুর টাউন পুলিশ ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক ছাম্মাক হোসেন জানান, বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টায় অভি প্রাইভেটকার মেরামতের জন্য উপজেলা পরিষদ সংলগ্ন একটি মোটর গ্যারেজে যান। এসময় ওঁৎপেতে থাকা এক দল সন্ত্রাসী তার উপর দেশীয় ধারালো অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে হামলা চালায়। প্রাণ বাঁচাতে অভি গ্যারেজ সংলগ্ন বাগানের ভিতর দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করেন। সন্ত্রাসীরা তাকে ধাওয়া করে গ্যারেজের পার্শ্বে বাগানের মধ্যে এলোপাথারী কুপিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে (শজিমেক) নেয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
নিহত আওয়ামীলীগ নেতা অভির মা বুলবুলি কাওসার বলেন, পূর্বপরিকল্পিত ভাবে ডেকে নিয়ে গিয়ে আমার পুত্র অভি কে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। আমার পুত্র কে যারা হত্যা করেছে তাদের বিচার চাই।
অভির স্ত্রী খাদিজা আক্তার লিমা ফেসবুক লাইভে জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন পালনের কথা বলে আমার স্বামীকে ডেকে নিয়ে গিয়ে পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করা হয়েছে। যারাই এ হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত তাদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানান।
শেরপুর পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি সারোয়ার রহমান মিন্টু ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম হোসেন জানান, মোর্তজা কাওসার অভি পৌর আওয়ামীলীগের প্রস্তাবিত কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক পদে ছিলেন। তারা অভি হত্যার সাথে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানান।
গতকাল বিকাল তিন টায় নিহতের চাচা শফিকুল ইসলাম শিরু জানান, লাশের ময়নাতদন্ত ও দাফন সম্পন্ন করে থানায় এজাহার দায়ের করা হবে।
শেরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আতাউর রহমান খন্দকার জানান, ঘটনার পরপরই হত্যাকান্ডের স্থান পরিদর্শন করেছেন বগুড়া জেলা পুলিশ সুপার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী। নিহত অভির লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। ঘটনায় জড়িত সন্দেহভাজনদের গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। গতকাল বিকাল ৩ টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত এ ঘটনায় কোন মামলা হয়নি।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

5 × 4 =

Back to top button
Close