বগুড়া সংবাদ ডট কম : চার্চ্চেস অব গড মিশন পরিচালক “ফিল্ড ডিরেক্টর” রেভা: উত্তম দেওয়ানের বিভিন্ন অপকর্মের বিরুদ্ধে বগুড়া জেলা প্রশাসকের নিকট সম্মিলিত মিশন কর্মচারী ও বিভিন্ন মন্ডলীর (চার্চ্চ) সদস্যবৃন্দ স্মারকলিপি প্রদান ও প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করা হয়। রোববার সকালে মিসেস লুনা বিশ্বাস চক্রবর্ত্তী সাক্ষরিত এই স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। স্মারকলিপিতে বলা হয় চার্চ্চেস অব গড মিশন বাংলাদেশ এর উত্তরাঞ্চলে শতাব্দিকাল নিজ সম্প্রদায়ের মধ্যে অতি সুনামের সহিত কাজ করে আসছে। কিন্তু বর্তমান ফিল্ড ডিরেক্টর উত্তম দেওয়ান ২০০৪ সাল হতে অদ্যবধি বিভিন্নভাবে দূর্নীতি স্বজনপ্রীতি ও আত্মীয়করণসহ বিভিন্ন অপকর্ম করে আসছে। তার অদক্ষ্যতা ও অর্থ আত্মসাতের ফলে প্রতিষ্ঠানটি ধীরে ধীরে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে। এমন অবস্থা চলতে থাকলে প্রতিষ্ঠানটির সঙ্গে জড়িত পাঁচশত পরিবার অন্ধকারে নিমজ্জিত হতে পারে। নিয়মনীতি উপেক্ষা করে তার পছন্দের লোকদের নিয়োগ প্রদানসহ বিভিন্ন ধরনের সুবিধা দিয়ে থাকে। অথচ ত্যাগী কর্মীরা সামান্য বেতনে অর্ধাহারে অনাহারে দিন যাপন করছে। উল্লেখ্য যে তিনি দাতা সংস্থার প্রাপ্ত অর্থ ছয় নয় করেছে। তার অন্যায়ভাবে একক আধিপত্যের বিষয়ে কথা বলা হলে হয় চাকুরিচ্যুৎ না হয় শাস্তি প্রদান। তার আনুগত্যশীল ও আত্মিয়দের নিয়ে পরিচালনা পর্ষদের কমিটি গঠন করা হয় যেন তার বিরুদ্ধে কেহ মূখ না খোলে। ২০১৫ সালে তিনি মিশন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে অনিয়ম করায় রাজশাহী বোর্ড কর্তৃক অবাঞ্ছিত ও স্কুল সভাপতি হতে তাকে বহিস্কৃত করা হয়। তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে মিশন বয়েস এন্ড গার্লস স্কুল হোস্টেল বন্ধ করে দেন যা অমানবিক। তার সীমাহীন দূর্নীতির কারণে মিশন স্কুলের কর্তৃত্ব সরকারের হাতে চলে যায় এবং পরবর্তীতে দূর্ণীতি ও অর্থ আত্মসাতের দায়ে তার বিরুদ্ধে জয়পুরহাট মিশন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বাদী হয়ে বিশেষ আদালতে মামলা দায়ের করে যার নং ০৮/২০১৫। তার বিরুদ্ধে মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীদের উপবৃত্তি বন্ধকরণ, বিভিন্ন উৎস হতে অর্থ আত্মসাৎ, বেতন বৈষম্যতা, প্রতিষ্ঠানের সম্পদ নিয়ম বর্হিভূতভাবে ব্যবহার, নিজ আয়ত্বের কর্মীদের অপরাধ প্রশ্রয়, কর্মচারীদের প্রতি মানষিক নির্যাতন ও বদলী বাণিজ্য, ভূয়া সংষ্কার প্রতিবেদন, লোক দেখানো ছাত্র-ছাত্রীদের হোষ্টেল চালুকরণ, জমি হতে আয়ের অর্থ আত্মসাৎ, সরঞ্জামাদী ক্রয়ে অবৈধ আয়, ক্ষমতার অপব্যবহার, সংস্থার বিধি উপেক্ষা, বৃক্ষ নিধন, পাঠ্য বই বিতরণে অনিয়ম, আচরনবিধি লঙ্ঘন সহ নানা অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। ফিল্ড ডিরেক্টর উত্তম দেওয়ান প্রতিষ্ঠান পরিচালনায় অদক্ষ, দূর্নীতি পরায়ন ও অর্থ আত্মসাৎকারী হওয়ায় তাকে অপসারণ করা অতিব জরুরী বলে স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন এ্যাডভোকেট বার্নাড তমাল মন্ডল, ডা: রিটা মন্ডল, ডা: রেজাউল করিম, মি. সুজিত টুডুসহ বগুড়া মিশন হাসপাতালের সকল চিকিৎসক, কর্মচারী ও সকল খৃষ্টান সমাজ প্রতিনিধি।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন