বগুড়া সংবাদদ ডটকম :বগুড়ায় কিশোরীকে ধর্ষন এবং নির্যাতনের মামলায় মা ও মেয়েকে গতকাল বগুড়ার শিশু আদালতে হাজির করা হয়। ধর্ষিতার বাবা ইয়াকুব আলী সোহাগ তার স্ত্রী এবং মেয়েকে নিজের জিম্মায় নেওয়ার আবেদন করলে বিচারক তা নাকচ করেন।
শ্রমিকলীগের বহিস্কৃত নেতা তুফান সরকার ভর্তির প্রলোভনে ধর্ষন এবং মা ও মেয়েকে নির্যাতন করে মাথা ন্যাড়া করে দেওয়ার ঘটনায় বগুড়া সদর থানায় ১০ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়। ওই মামলার ঘটনায় নিরাপত্তার কারনে মা ও মেয়েকে রাজশাহীতে সেফহোম ও ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে পাঠানো হয়।
শিশু আদালতের ষ্পেশাল পাবলিক প্রসিকিউটর এ্যাডঃ আমান উল্লাহ জানান, আদালতে ধর্ষিতার বাবা তার স্ত্রী এবং মেয়েকে জিম্মায় নেওয়ার জন্য কোন আবেদনই ছিল না। মামলার বাদী এবং তদন্তকারী কর্মকর্তাও তাদের জিম্মায় নেওয়ার আবেদন করেনি। তাই বিচারক মুহাঃ ইমদাদুল হক তা নাকচ করে দিয়েছেন। তিনি আদেশ দিয়েছেন, মামলার তদন্তের আগে মা মুন্নি বেগম রাজশাহীতে সেফহোম ও তার মেয়ে ধর্ষিতা ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে অবস্থান করবে। এ্যাডঃ আমান আরো জানান, মা ও মেয়েকে আদালতে হাজিরের কোন নির্দেশ ছিল না।
এ্যাডঃ আব্দুল বাছেদ জানান, মা ও মেয়েকে জিম্মায় দিতে আইনগত কোন সমস্যা নেই। এ বিষয়ে ব্যাখ্যা দিয়ে আদালতে বলেছি।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সদর থানার ওসি (অপারেশন) আবুল কালাম আজাদ জানান, তিনি পারিবারিক কারণে ব্যস্ত থাকায় আদালতে যেতে পারেননি। রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশ ভিকটিম মা ও মেয়েকে বুধবার ধার্য তারিখে আদালতে হাজির করেছিল।

 

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন