Breaking News

কাহালু-নন্দীগ্রাম এলাকার বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী আলহাজ্ব মোশারফ হোসেনের জীবন বৃত্তান্ত

বগুড়া সংবাদ ডট কম (কাহালু প্রতিনিধি এম এ মতিন) : বিশিষ্ট শিল্পপতি আলহাজ্ব মোঃ মোশারফ হোসেন বগুড়া জেলার নন্দীগ্রাম উপজেলার বুড়ইল গ্রামে ১৯৭৪ সালের ২১ শে নভেম্বর এক সম্ভ্রান্ত জোতদার পরিবারে জম্ম গ্রহন করেন। তার পিতার নাম মৃতঃ হামির উদ্দিন সরকার ও মাতার নাম আলহাজ্ব মিসেস পমিজান। সে বুড়ইল সরকারি প্রার্থমিক বিদ্যালয় হতে ৫ম শ্রেণী, ধুন্দার উচ্চ বিদ্যালয় হইতে ১৯৯০ সালে এস এস সি ও নন্দীগ্রাম মনসুর হোসেন ডিগ্রী কলেজ হইতে এইচ এস সি এবং সরকারি আযিযুল হক বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ হইতে কৃতিত্বের সাথে স্নাতক ডিগ্রী অর্জন করেন। মাষ্টার্স পরীক্ষার পর সরকারি চাকুরীর সুযোগ পাওয়া স্বত্ত্বেও নিজেকে একজন ব্যবসায়ী ও বিএনপির সাথে জড়িত থাকার কারণে কাহালু-নন্দীগ্রাম এলাকার জনগনের আপদে-বিপদে তাদের পাশে দাড়ানোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। বিশিষ্ট শিল্পপতি আলহাজ্ব মোশারফ হোসেন বর্তমানে নন্দীগ্রাম উপজেলা বিএনপি’র সদস্য ও বগুড়া জেলা বিএনপির কার্যনির্বাহী সদস্য, কেন্দ্রীয় কোকো স্মৃতি পরিষদ এর যুগ্ম আহবায়ক, জিয়া শিশু-কিশোর পরিষদের সহ-সভাপতি। এছাড়াও ঢাকার ফাইভ ষ্টার প্লাস্টিক ইন্ডাষ্ট্রিজ, ফাইভ ষ্টার কেমিক্যাল ও রোজা এন্টারপ্রাইজ এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর ও প্রোপাইটার তিনি। ২০১২ সালে ১’শ জন তরুণ শিল্প উদ্যোক্তার মধ্যে “অর্থকন্ঠ” বাংলাদেশ কর্তৃক জরিপে তরুণ শিল্প উদ্যোক্তা হিসেবে উত্তর বঙ্গের কৃতি সন্তান আলহাজ্ব মোশারফ হোসেন মনোনীত হন। গত ১২/০৭/১২ইং তারিখে শেরাটন হোটেলে “অর্থকন্ঠ” আয়োজনে অনুষ্ঠানে তরুণ শিল্প উদ্যোক্তা হিসেবে আলহাজ্ব মোশারফ হোসেনকে এ্যাওয়ার্ড প্রদান করেন মাননীয় বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী লেঃ কর্ণেল (অবঃ) ফারুক খান। ২০১২ সালের ১০ ডিসেম্বর জাতীয় মানবাধিকার সংস্থা ইন্টারন্যাশনাল ডায়লগ এইড ফাউন্ডেশন (ইডাফ) মানব সেবায় বিশেষ অবদান রাখার জন্য বাংলাদেশ ফটো জার্নালিষ্ট এসোসিয়েসন মিলনায়তে আনুষ্ঠানিক ভাবে আলহাজ্ব মোশারফ হোসেনকে ক্রেস্ট তুলে দেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি সাবেক সেনা প্রধান ও বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির সদস্য লেঃ জেঃ (অবঃ) মাহবুবুর রহমান ও বিএনপি’র চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা মেঃ জেঃ (অবঃ) রুহুল আলম চৌধুরী (বীরবিক্রম) এবং বিশিষ্ট সাংবাদিক মানবাধিকার কর্মী সারোয়ার হোসেন। আলহাজ্ব মোশারফ হোসেন তার নিজস্ব অর্থায়নে কাহালু ও নন্দীগ্রাম এলাকার গরীর মানুষের মাঝে কম্বল, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ঘড়ি বিতরণ, মসজিদ, মাদ্রাসা, মন্দির, ক্লাবে নগদ অর্থ বিতরণ সহ সামাজিক অঙ্গনে বিশেষ অবদান রাখার কারণে তিনি অতি অল্প সময়ে কাহালু-নন্দীগ্রাম এলাকার মানুষের কাছে রাজনৈতিক ভাবে ব্যাপক পরিচিত লাভ করেন। শুধু তাই নয়, কাহালু-নন্দীগ্রাম এলাকার বিএনপিকে সুসংগঠিত করার লক্ষ্যে নেতাকর্মীদের সাথে সর্বক্ষণ যোগাযোগ করছেন।প্রতিনিয়ত তিনি নিজেই কাহালু-নন্দীগ্রাম উপজেলার বিভিন্ন স্থানে গণ-সংযোগ ও বিভিন্ন পেশাজীবি মানুষের সাথে কুশল বিনিময় করছেন।