Breaking News

রাজধানীতে বাড়ীওয়ালার পরকীয়ার বলি হলো ধুনটের ভাড়াটিয়া রবিউল

বগুড়া সংবাদ ডট কম (ধুনট প্রতিনিধি ইমরান হোসেন ইমন) : রাজধানীতে এক বাড়ীওয়ালার পরকীয়ার বলি হয়েছে বগুড়ার ধুনটের রবিউল করিম (২৫) নামের ভাড়াটিয়া যুবক। রবিউল করিমের স্বজনদের দাবি বাড়ীওয়ালার পরকীয়ার প্রেমের তথ্য ফাঁস হওয়ায় অপহরনের পর তাকে গুম করা হয়েছে। তবে দীর্ঘ এক মাস অতিবাহিত হলেও রবিউলের কোন সন্ধান না পাওয়ায় হতাশাগ্রস্থ হয়ে পড়েছে তার পরিবার। তারা রবিউলকে ফিরে পেলে প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
জানাগেছে, বগুড়ার ধুনট উপজেলার চৌকিবাড়ী গ্রামের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী বিশা মন্ডলের ছেলে রবিউল করিম জীবিকার তাগিদে প্রায় ১০ বছর যাবত ঢাকায় ইলেকট্রিক্যাল কাজ করতো। এই সুবাদে সে তার স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে ঢাকার কাফরুল থানার পূর্ব মনিপুর এলাকার কবির হোসেনের ১২৮৮/বি/২ নং বাসায় ভাড়া থাকতো। কিন্তু দীর্ঘদিন যাবত একই বাসার ভাড়াটিয়া তামিম হোসেনের স্ত্রী নূর নাহারের (২২) সাথে বাড়ীওয়ালা কবির হোসেনের (৫৫) পরকীয়া প্রেম চলে আসছিল। গত ১৫ মে পরকীয়া প্রেমের তথ্য ফাঁস হয়ে যাওয়ায় বাড়ীওয়ালা কবির হোসেন ও তার লোকজন রবিউল ইসলামকে মারধর করে বাসা ছেড়ে অন্যত্র চলে যেতে বলে। গত ৩১ মে বাড়ীওয়ালা কবির হোসেন তার বাড়ীর কেয়ার টেয়ার সজীব হোসেনের মাধ্যমে ভাড়াটিয়া রবিউল করিমকে দেখা করতে বলে। সন্ধার পর রবিউল বাড়ীওয়ালার সাথে দেখা করতে তার বাসায় যায়। কিন্তু রাতে রবিউল বাসায় ফিরে না আসলে তার স্ত্রী নাজমা আকতার বাড়ীওয়ালার বাসায় গেলে সে আসে নাই বলে জানায় এবং তাদের বাসা ছেড়ে চলে যেতে বলে।
নিখোঁজ রবিউলের স্ত্রী নাজমা আকতার বলেন, বাড়ীওয়ালার সাথে এক ভাড়াটিয়ার স্ত্রীর অবৈধ সম্পর্ক ছিল। এবিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর রবিউলকে দেখা করতে বলে বাড়ীওয়ালা কবির হোসেন। কিন্তু এরপর থেকে সে নিখোঁজ হয়ে যায়। বিভিন্ন জায়গায় খুজেও তাকে পাওয়া যায়নি এবং তার মোবাইলও বন্ধ রয়েছে। এঘটনায় গত ২ জুন রবিউল করিমের বড় ভাই জহিরুল ইসলাম ঢাকার কাফরুল থানায় সাধারন ডায়েরী করেন। ডায়েরী নং-৯৯।
রবিউলের বড় ভাই জহিরুল ইসলাম বলেন, কাফরুল থানায় দায়েরকৃত ডায়েরীটি তদন্ত করতে এসআই ইদ্রিস আলীকে দায়িত্ব দিয়েছে। কিন্তু থানায় ডায়েরী করার পর ৪ জুন রবিউল তার স্ত্রীকে অন্য একটি মোবাইলফোন থেকে অপহরনের বিষয়টি এবং তাকে হত্যা করা হবে জানায়। মোবাইলের কললিষ্টে অপহরনের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পরও অজ্ঞাত কারনে কোন মামলা নেননি পুলিশ। এদিকে ছোট ভাইকে খুঁজে পেতে হাল ছাড়েনি জহিরুল। তিনি বাদী হয়ে ঢাকার বিজ্ঞ মুখ্য মহানগর হাকিমের আদালতে মামলা দায়ের করেন। তিনি অভিযোগ করে বলেন, আদালতের গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি হলেও কাফরুল থানা পুলিশ এবিষয়ে কোন পদক্ষেপ নিচ্ছে না। দীর্ঘ এক মাস অতিবাহিত হলেও রবিউলের কোন সন্ধান না পাওয়ায় হতাশাগ্রস্থ হয়ে পড়েছে তার পরিবার। তারা রবিউলকে ফিরে পেতে প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
এবিষয়ে কাফরুল থানার এসআই ইদ্রিস আলী বলেন, জিডির বিষয়টি তদন্ত করে নিখোঁজ যুবককে উদ্ধারের চেষ্টা করা হচ্ছে।