Breaking News

ধুনটে ঝুঁকিপূর্ণ বাঁশের সাঁকো পারাপারে হাজারো মানুষের দূর্ভোগ

বগুড়া সংবাদ ডট কম (ইমরান হোসেন ইমন, ধুনট বগুড়া থেকে) : বগুড়ার ধুনটের চিকাশী ইউনিয়নের আরকাটিয়া-মহনপুর গ্রামের ইছামতি নদীতে ঝুঁকিপূর্ণ বাঁশের সাঁকোই হাজারো মানুষের যাতায়াতের একমাত্র ভরসা। দীর্ঘ দিনেও ওই নদীর উপর কোন সেতু নির্মান না হওয়ায় শিক্ষার্থী সহ এলাকাবাসীদের যাতায়াতে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।
সরেজমিনে দেখা যায়, ধুনট উপজেলার চিকাশী ইউনিয়নের পাশ দিয়ে বহমান ইছামতি নদী। নদীর পশ্চিমপাশে আরকাটিয়া ও পূর্বপাশে মহনপুর গ্রাম। কিন্তু গ্রাম দুটিকে যুগ যুগ ধরে পৃথক করে রেখেছে ইছামতি নদী। কিন্তু তারপরও ওই নদী পার হয়ে প্রতিদিন প্রায় কয়েক হাজার মানুষকে গন্তব্যে পৌছাতে হয়। গত ৫ বছর আগে এলাকাবাসী স্বেচ্ছাশ্রমে রাস্তা নির্মানের পর নদীতে বাঁশের সাঁকো নির্মান করেছে। প্রতিদিন ওই সাঁকোর উপর দিয়ে ঝুঁকিপূর্নভাবে শিক্ষার্থী সহ আশপাশের কয়েকটি গ্রামের হাজারো লোকজন যাতায়াত করছে। সাঁকোর উপর দিয়ে লোকজন পারাপার হলেও মালামাল ও কৃষি পন্য পরিবহনে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হয়। এছাড়া অসুস্থ রোগীকে হাসপাতালে নিতেও বিড়ম্বনায় পড়তে হয় স্বজনদের। অতিরিক্ত চলাচলের কারনের সাঁকোটি মাঝে মধ্যে ভেঙ্গে গেলে প্রায় দুই কিলোমিটার ঘুরে এলাকাবাসীকে গন্তব্যে পৌঁছতে হয়। এছাড়া নদীতে পানি বৃদ্ধি পেলে এ দূর্ভোগ আরো বেড়ে যায়।
মহনপুর গ্রামের কৃষক আজিবর রহমান ও ব্যবসায়ী ফজলে রাব্বি সহ অনেকে আক্ষেপ করে বলেন, নির্বাচনের আগে অনেক নেতাই নদীতে সেতু নির্মানের প্রতিশ্রুতি দেন। কিন্তু ভোটের পরে কেউই কোন কথা রাখেন না। নদীতে সেতু নির্মান হলে শিক্ষার্থী সহ গ্রামের কয়েক হাজার মানুষের দূর্ভোগ কমবে।
এ বিষয়ে চিকাশী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নাজমুল কাদির শিপন বলেন, ইছামতি নদীর উপর ব্রীজ না থাকায় কয়েকটি গ্রামের কয়েক হাজার মানুষকে প্রতিদিন চরম দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। ওই নদীতে একটি ব্রীজ নির্মান হলে এলাকাবাসীর দূর্ভোগ লাঘব হবে। তাই দ্রুত ব্রীজ নির্মান করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে প্রস্তাবনা পাঠানো হবে।