Breaking News

প্রশংসনীয় উদ্যোগ ‘সেবা বাহন’ এর সফলতা নিশ্চিত করতে কঠোর নজরদারীর আহবান সুশীল সমাজের

z-pic-21-11-2016

বগুড়া সংবাদ ডট কম (শাজাহানপুর, বগুড়া জিয়াউর রহমান) : বগুড়ার শাজাহানপুরে গ্রামীন দুঃস্থ মানুষের চিকিৎসা সেবায় সহযোগীতা করতে চালু হয়েছে ব্যতিক্রমধর্মী একটি মহৎ ও প্রশংসনীয় উদ্যোগ এ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস ‘সেবা বাহন’। উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের হতদরিদ্র রোগীরা যাতে স্বল্প খরচে গ্রামীণ এ্যাম্বুলেন্সের সেবা পায় সে লক্ষ্যেই এলজিএসপি-২ প্রকল্পের অর্থায়নে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ শাফিউল ইসলামের এই ব্যতিক্রমী উদ্যোগ। গত ২ অক্টোবর মহা ধুমধামে এই মহৎ উদ্যোগের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মো. আশরাফ উদ্দিন। উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের চেয়ারম্যানদের হাতে তুলে দেয়া হয় সেবা বাহনের চাবী।
উদ্বোধনের পর দেড় মাস অতিবাহিত হলেও ইতিমধ্যে সেবা বাহনের সফলতা নিয়ে শুরু হয়েছে কানাঘোষা। প্রচার-প্রচারনা না থাকায় জনসচেতনার অভাব, দায়িত্ত্বশীল ব্যক্তিদের দায়িত্বহীনতা আর নজরদারির অভাবেই সেবা বাহনের সফলতা নিয়ে এই কানাঘোষা শুরু হয়েছে। এমতাবস্থায় এই মহৎ উদ্যোগের সফলতা নিশ্চিত করতে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের প্রতি কঠোর নজরদারির আহবান জানিয়েছেন উপজেলার সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দ।
উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন ঘুরে জানাগেছে, গ্রামাঞ্চলের সাধারন মানুষেরা সেবা বাহনের সুযোগ-সুবিধা সম্পর্কে কিছুই জানে না। মধ্যরাতেও জরুরী রোগীকে হাসপাতালে নেয়ার যে সহজ উপায় সেবা বাহন তা তাদের জানা নেই। ভাড়া যাই হোক ওই সময় সাধারন বাহন পাওয়াও কষ্ঠ সাধ্য। শুধুমাত্র প্রচারনার অভাবেই এই সমস্ত সাধারন মানুষেরা সেবা বাহনের সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন।
অপরদিকে দায়িত্বশীল ব্যক্তিদের দায়িত্বে অবহেলা আর গুরুত্বের অভাবে সেবা বাহনের সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন ভুক্তভোগীরা। ব্যক্তিগত কোন কাজে সেবা বাহন ব্যবহার না করার কথা থাকলেও তা ব্যবহার করতে দেখা গেছে। এমনকি ভাড়ায় যাত্রীবহন করতেও দেখা গেছে। সেবা বাহনের সেবা পেতে নির্দিষ্ট নাম্বারে ফোন করেও পাওয়া যায় না। সেবা বাহনের দায়িত্বপ্রাপ্ত চালকদের সাথে কথা বললে তারা জানান, নির্দিষ্ট বেতন-ভাতা না থাকায় কিছুটা এদিক-সেদিক হতেই পারে। তাছাড়া রোগী বহন করে মাসে যে কয় টাকা ভাড়া আসে তাতে পোষাবেনা।
সেবা বাহনের সুফল আর সফলতার প্রতিবন্ধকতা বিশ্লেষন করে সংশ্লীষ্ট্য প্রশাসনের প্রতি সুশীল সমাজের কঠোর নজরদারীর আহবানকে সমর্থন জানিয়ে উপজেলার মাঝিড়া বন্দরের প্রফেসর ক্লিনিকের স্বত্তাধিকারী অধ্যক্ষ জাফর আলমগীর বলেন, সেবা বাহনের কার্যক্রম প্রশংসার দাবীদার। এর সফলতার স্বার্থে সকল প্রতিবন্ধকতাকে দূর করতে সংশ্লীষ্ট প্রশাসনের কঠোর নজরদারীর পাশাপাশি সমাজের সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।
ডেমাজানী কমর উদ্দিন ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ এএইচএম শফিকুত তারিক মাসুম বলেন, নিঃসন্দেহে সেবা বাহন একটি মহৎ উদ্যোগ। এর সফলতা শুধুমাত্র দরিদ্র জনগোষ্ঠিই ভোগ করবে না রাষ্ট্রীয় ভাবেও প্রশংসিত হতে পারে সেবা বাহন। তাই সফলতা নিশ্চিত করতে প্রচারনা বৃদ্ধির পাশাপাশি সকল প্রতিবন্ধকতা দূর করতে হবে। একমাত্র ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের কঠোর নজরদারীই পারে সকল প্রতিবন্ধকতা দূর করতে।
শাজাহানপুরের কৃতিসন্তান বগুড়া জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুর রহমান দুলু বলেন, সেবা বাহন নিয়ে অবহেলা করা ঠিক হবে না। সবাইকে গুরুত্বের সাথে দায়িত্ব পালন করতে হবে। সরকার গণমানুষের ভাগ্যের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। এ সময়ে এ রকম একটি উদ্যোগ নিঃসন্দেহে প্রশংসার দাবীদার। জনসচেতনতার জন্য প্রচার-প্রচারনা বৃদ্ধি করতে হবে। প্রতিবন্ধকতা দেখা দিলে তা কঠোর হস্তে দমন করতে হবে। সবমিলিয়ে সবাইকে আন্তরিক হতে হবে। জনসচেতনতা বৃদ্ধি করতে হবে। তবেই সেবা বাহনের সফলতা আসবে। পাশাপাশি শাজাহানপুরে সেবা বাহনের কার্যক্রম ও সফলতা দেখে আশপাশের উপজেলা ছাড়াও সারাদেশে এর সুফল পৌছে যেতে পারে।
সেবা বাহনের উদ্যোক্তা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ শাফিউল ইসলাম জানান, যেকোন কাজেই প্রতিবন্ধকতা আসতে পারে। আর ওই সমস্ত কাজের সফলতা নির্ভর করে সমাজের সকলের সচেতনতা ও আন্তরিকতার উপর। একক ভাবে কোন কাজই সম্ভব নয়। তাই সকলকে এগিয়ে আসতে হবে। চেয়ারম্যানদেরকে কঠোর নজরদারী রাখতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি সকল প্রতিবন্ধকতাকে কঠোর হস্তে দমন সহ জনসচেতনতার জন্য প্রচার-প্রচারনা বৃদ্ধি করা হবে বলেও জানান তিনি।