বগুড়া সংবাদ ডটকম (শাজাহানপুর প্রতিনিধি জিয়াউর রহমান) : বগুড়ার শাজাহানপুরে কলেজ ছাত্রী চৈতি (১৭) কে ছুরিকাঘাতের ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। চৈতির নানা আলতাফ আলী বাদি হয়ে এই মামলা দায়ের করেন। এঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আব্দুল মান্নান (৪২) নামের একজনকে আটক করেছে পুলিশ।
জানাগেছে, বগুড়া শহরের বারপুর এলাকার তাইজুল ইসলাম খোকনের কলেজ পড়ুয়া মেয়ে খুরশীদা আরেফিন চৈতি (১৭) ফুলতলা চককানপাড়ায় তার নানার বাড়ি থেকে লেখাপড়া করতো। সে বগুড়া পুলিশ লাইন্স স্কুল এন্ড কলেজের এইচএসসি ১ম বর্ষের ছাত্রী।
চৈতি জানান, বেশ কিছুদিন পূর্বে একই এলাকার রফিকুল ইসলামের ছেলে লিখন (২০) তাকে প্রেমের প্রস্তাব দেয়। কিন্তু সে প্রস্তাবে রাজি হয়নি। এরপর থেকে লিখন তাকে বিভিন্ন ভাবে উত্যক্ত করে আসছিল। বিষয়টি লিখনের বাবাকে জানানো হয়। এমতাস্থায় রোববার দুপুরে কলেজ ছুটির পর বাড়ি ফেরার পথে পিছু নেয় লিখন। একপর্যায়ে বাড়ি ফেরার পর লিখন তার দুই সহযোগীকে নিয়ে বাড়িতে প্রবেশ করে গালিগালাজ করে এবং তার বাম পাশে কাঁধের নিচে ছুরিকাঘাত করে। এসময় তার নানী আফরোজা বেগম (৫২) এগিয়ে এলে তারও মাথায় ও কাঁধে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায় লিখন।
গুরুতর আহত অবস্থায় চৈতি ও তার নানী আফরোজা বেগম বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এঘটনায় চৈতির নানা আলতাফ আলী বাদী হয়ে লিখনকে আসামী করে শাজাহানপুর থানায় মামলা দায়ের করেছেন।
থানার ওসি জিয়া লতিফুল ইসলাম জানান, স্থানীয় লোকজনের মাধ্যমে জানা গেছে যে ওই দুই ছেলে-মেয়ের মধ্যে দীর্ঘদিন যাবত প্রেমের সম্পর্ক ছিল। মামলা দায়ের হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য লিখনের মামা আব্দুল মান্নানকে নিয়ে আসা হয়েছে। লিখনকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন