বগুড়া সংবাদ ডট কম (ফিরোজ কামাল ফারুক) : বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলায় ১০৫টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে শহীদ মিনার রয়েছে চারটিতে। অথচ সরকারি ভাবে প্রত্যেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করার নির্দেশনা রয়েছে। তবে এসব প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার না থাকায় শহীদদের প্রতি ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানাতে পারছে না শিক্ষার্থীরা। এছাড়া অধিকাংশ মাধ্যমিক, মাদ্রাসা ও কলেজে শহীদ মিনার নেই। ফলে প্রতিবছর ভাষা শহীদ দিবস এলেই বাঁশ বা কলাগাছ দিয়ে অস্থায়ী শহীদ মিনার তৈরী করে দিবসটি পালন করেন এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এতে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা ফুল দিয়ে শহীদের প্রতি শ্রদ্ধা জানায় এসব শহীদ মিনারে।
শিক্ষার্থীরা জানায়, দেশ এখন ডিজিটাল হয়েছে, দেশ এগিয়ে যাচ্ছে কিন্তু আমরা নন্দীগ্রামের শিক্ষার্থীরা, অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পাচ্ছিনা কোন স্থায়ী শহীদ মিনার। ফলে প্রতি বছরই এভাবে অস্থায়ী শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে হয় আমাদের। বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক/শিক্ষিকা বলেন, আমরা চাই প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে একটি করে স্থায়ী শহীদ মিনার তৈরি করা হোক। এপ্রসঙ্গে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার নজরুল ইসলাম বলেন, এই উপজেলায় ১০৫ টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। এরমধ্যে মাত্র চারটিতে শহীদ মিনার রয়েছে। আর অন্য কোন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নেই কোন স্থায়ী শহীদ মিনার। এদিকে অভিযোগ উঠেছে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান প্রধান ও ম্যানেজিং কমিটির সভাপতির অবহেলার কারণে এসব প্রতিষ্ঠানে আজও নির্মাণ করা হয়নি শহীদ মিনার। তবে উপজেলার বেশির ভাগ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার না থাকায় ব্যাপারটাকে দু:খজনক বলে জানান সচেতন নাগরিক মহল।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন