বগুড়া সংবাদ ডটকম (শাজাহানপুর প্রতিনিধি জিয়াউর রহমান) : বগুড়ার শাজাহানপুরে বেসরকারি সংস্থা টিএমএসএস এর বিরুদ্ধে সুজাবাদ দহপাড়া এলাকায় সরকারি রেকর্ড ভূক্ত রাস্তা দখল করে সিরামিক ইন্ডাষ্ট্রিজ নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে। হিন্দু সম্প্রদায়ের শ্মশানে যাওয়ার একমাত্র রাস্তা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় মুকুন্দ গোঁসাই আশ্রমের সভাপতি মনিন্দ্রনাথ মহন্ত বাদি হয়ে বুধবার উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর এই অভিযোগ দায়ের করেন। যার অনুলিপি অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) বগুড়া, মেয়র বগুড়া পৌরসভা, উপজেলা চেয়ারম্যঅন শাজাহানপুর, অফিসার্স ইনচার্জ শাজাহানপুর থানা এবং কাউন্সিলর ১৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর বরাবর প্রেরণ করা হয়েছে। অভিযোগ পাওয়ার পর বুধবার বিকেলে অবৈধ নির্মাণ কাজ বন্ধের নির্দেশ দিয়েছেন উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মো. মাছুদুর রহমান।
অভিযোগ সুত্রে জানাগেছে, সুজাবাদ ও আশপাশ এলাকার হিন্দু সম্প্রদায়ের কোন ব্যক্তি মারা গেলে লাশ সৎকারের জন্য ওই রাস্তা দিয়েই করতোয়া নদীর তীরে অবস্থিত শ্মশানে নিতে হয়। এছাড়া প্রতি বছর সারদীয়া দুর্গোৎসবে অর্ধশতাধিক দুর্গা প্রতিমা বিজর্সন দিতে ওই রাস্তাটিই ব্যবহার করে থাকেন হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন। সম্প্রতি ওই রাস্তার দু’ধারে টিএমএসএস জমি কিনেছে এবং ক্রয়কৃত সম্পত্তিতে টাইলস্ কারখানা স্থাপনের লক্ষ্যে নির্মাণ কাজ শুরু করেছে। কারখানার স্থাপনা নির্মাণকালে টিএমএসএস কর্তৃপক্ষ সরকারি রাস্তাটিও পুরোপুরি দখলে নিয়েছে। এতে হিন্দু সম্প্রদায়ের শ্মশানে যাতায়াত এবং দুর্গা প্রতিমা বিসর্জনের পথ রুদ্ধ হয়েছে। তাই হিন্দু সম্প্রদায়ের ধর্মীয় কর্মকান্ড সুষ্ঠু ভাবে পরিচালনার স্বার্থে সরকারি ওই রাস্তাটি অবৈধ দখল থেকে মুক্ত করতে প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন অভিযোগের বাদী মুকুন্দ গোঁসাই আশ্রম কমিটির সভাপতি মনিন্দ্র নাথ মোহন্ত।
অপরদিকে টিএমএসএস’র পরিচালক ও বিল্ডিং কনষ্ট্রাকশন লিমিটেড (বিসিএল)’র অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক সারওয়ার মোহাম্মেদ জানিয়েছেন, রাস্তার দু’ধারেই তাদের কেনা সম্পত্তি। তাই সরকারি রাস্তাটি কারখানার মধ্যে নিয়ে অন্যপাশ দিয়ে তারা নিজ দায়িত্বে রাস্তা তৈরি করে দিবেন বলে স্থানীয়দের সাথে কথা বলেছেন। এমনকি সরকারের সাথে জমি এওয়াজ করার চিন্তা-ভাবনাও করছেন।
শাজাহানপুর উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মো. মাছুদুর রহমান সাংবাদিকদের জানান, উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশে বুধবার সরজমিন তদন্ত করেছি। তদন্ত শেষে নির্মাণ কাজ বন্ধ ও নির্মাণাধীন স্থাপনা সরিয়ে নিতে সংশ্লিষ্টদের বলা হয়েছে।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন