বগুড়া সংবাদ ডট কম (কাহালু প্রতিনিধি এম এ মতিন) : আইসিটি বেইজড্ রেসপনস্ এ্যা-সার্পোট মেকানিজাম টু অ্যাড্রেস ভায়োলেন্স এ্যাগেনেষ্ট উইম্যান এ্যা-গাল্স প্রকল্পের অষ্টোলিয়ান হাই কমিশন এর আর্থিক সহযোগিতায় এবং এসিড সারভাইভারস ফাউন্ডেশন (এএসএফ) এর তত্তাবধানে লাইট হাউসের আয়োজনে মঙ্গলবার কাহালুর পাইকড় ইউনিয়নের উচল বাড়িয়া দ্বি-মূখী উচ্চ বিদ্যালয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে নারী ও শিশুর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধের লক্ষ্যে স্কুল ক্যাম্পইন অনুষ্ঠিত হয়। স্কুল ক্যাম্পইনে সভাপতিত্বে করেন উচল বাড়িয়া দ্বি-মূখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নুর মোহাম্মদ শহীদ। স্কুল ক্যাপেইন-এর মূল লক্ষ্য/উদ্দেশ্য তুলে ধরেন প্রকল্প কর্মকর্তা রশিদা খাতুন-নারী ও শিশু সহিংসতার ভয়াবহতা, সহিংসতার আইন ও তাৎক্ষনিক ভাবে কী করণীয় এবং এ্ই সহিংসতা রোধ করার জন্য ছাত্র-ছাত্রী, অভিভাবকের ও স্কুল ব্যবস্থাপনা কমিটির সচেতনতা বৃদ্ধি করা। সহিংসতার শিকার শিক্ষার্থীগণ যেন আবার তার শিক্ষা জীবনে ফিরে যেতে পারেন, এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সে তার সহপাঠি এবং শিক্ষকগণের দ্বারা কোন প্রকার বঞ্চনা এবং বৈসম্যের শিকার না হন, সে লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট স্কুলের শিক্ষক, কমিটির সদস্য এবং অভিভাবকদের সাথে মিটিং র ব্যবস্থা করা। প্রধান অতিথি অত্র বিদ্যালয়ের স্কুল ব্যবস্থাপনা কমিটির আলহাজ্ব আব্দুর রহিম তার বক্তব্যে বলেন, লাইট হাউস বাল্য বিবাহ প্রতিরোধ করার জন্য যে পদক্ষেপ গ্রহন করেছে তা সকলের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ন। ছাত্র ছাত্রীদের বাল্য বিবাহ প্রতিরোধ সস্পর্কে নিজেদের সচেতন থাকতে হবে এবং কোন বন্ধু বান্ধবীর মধ্যে যদি বাল্য বিবাহের কথা হয় তাহলে প্রতিরোধ করার চেষ্টা করবে, স্কুলের শিক্ষক ও ভলান্টিয়াকে বিষয়টা জানাবে। অল্প বয়সে বিয়ে হলে ছেলে মেয়েরা লেখাপড়া থেকে বঞ্চিত হয় তারা উচ্চশিক্ষা লাভ করতে পারে না। নিজেদের জীবন সর্ম্পকে কিছু বুঝার আগেই তার সংসারের দায়িত্ব নিতে হয়। তাছাড়াও কম বয়সে বিয়ে হলে মেয়েদের স্বাস্থ্যহানি হয়। শারীরিক ও মানসিক দিক থেকে দূর্বল হয়ে পড়ে। বাল্য বিবাহ থেকে বিরত থাকার জন্য ছাত্র ছাত্রীদের আহবান জানান। অত্র বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নুর মোহাম্মদ শহীদ বলেন, কম বয়সে বিয়ে হলে মেয়েদের স্বাস্থ্যহানি হয়। শারীরিক ও মানসিক দিক থেকে দূর্বল হয়ে পড়ে। বাল্য বিবাহ থেকে বিরত থাকার জন্য তিনি ছাত্র-ছাত্রীদের প্রতি আহবান জানান। সার্বিক সহযেগিতায় মিতু খাতুন, নাছিমা খাতুন, আল আমিন ও সুরাইয়া।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন