বগুড়া সংবাদ ডট কম : জিরো পয়েন্ট সাতমাথায় বিশাল বিলবোর্ডে বগুড়া জেলা ট্রাক মালিক সমিতির সভাপতি আব্দুল মান্নান আকন্দ এবং সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মতিন সরকারের ঈদ শুভেচ্ছার প্যানাসাইন ঝুলছে। ঈদ শুভেচ্ছা দিয়ে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মতিন সরকারের নামে ওই বিলবোর্ডটি ঝুলানো হলেও ওই জায়গাটির বুকিং ছিল ঢাকার একজনের। বগুড়ার নারীধর্ষন এবং নির্যাতনের আলোচিত তুফানের বড় ভাই যুবলীগ শহর কমিটির বহিস্কৃত যুগ্ম সম্পাদক মতিন সরকার এর বগুড়া জেলা ট্রাক মালিক সমিতির ঈদ শুভেচ্ছার প্যানাসাইন ‘টক অব দ্য টাউন’ হিসেবে আলোচিত হচ্ছে এবং অনুমতি না নিয়ে ঈদ শুভেচ্ছার বিশাল প্যানা সাইনবোর্ড ঝুলছে।

বগুড়া জেলা ট্রাক মালিক সমিতির ব্যানারে মতিন সরকার এর নাম সহ শহরের প্রাণকেন্দ্র সাতমাথায় ঈদুল আজহার শুভেচ্ছা দিয়ে বিশাল আকৃতির প্যাণাসাইন বোর্ড টাঙানোর ঘটনাটি বগুড়ায় সাধারণ মানুষের মনে ফের উদ্বেগ ও আতংক সৃষ্টি করেছে। বিশেষ করে শ্রমজীবী মানুষ যারা রিক্সা, অটো রিক্সাভান চালক, ট্রাক মালিক সমিতির সদস্যদের মধ্যে আতংক ও উদ্বেগের পরিমান বেশি বলে লক্ষ্য করা গেছে।

জানা যায়, তুফানের সাম্রাজ্য গড়ে উঠেছিল তার বড় ভাই বহিস্কৃত যুবলীগ নেতা মতিন সরকারের কারনেই। তুফানের শুধু বড় ভাই নয়, গডফাদারও সে। তুফান গ্রেফতার হওয়ার পর একটি হত্যা মামলার ফেরারী আসামী হলেও পুলিশ মতিন সরকারকে ছুঁতে পর্যন্ত পারেনি। মন্ত্রী, প্রশাসন এবং আওয়ামীলীগ নেতাদের সাথে বড় বড় অনুষ্ঠানে একাধিকবার যোগ দিয়েছে মতিন সরকার। তুফানের বিষয়টি সারাদেশে আলোচিত হওয়ায় সামনে চলে আসে মতিন সরকার। তারপর সত্যিকারের ফেরারী আসামী হয়ে পড়ে মতিন। তুফানের ঘটনায় জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান বগুড়ায় আসেন এবং গোলটেবিল বৈঠক সেমিনার করেন। এসময় তিনি তার বক্তব্যে বলেছিলেন, তুফান কান্ড বিদেশের মাটিতে দেশকে হেয়প্রতিপন্ন করেছে। সেখানে আইনজীবী, সাংবাদিক, মানবাধিকার কর্মী, এনজিও কর্মী, নাগরিক সমাজ এবং প্রশাসনের কর্তা ব্যাক্তিরা উপস্থিত ছিলেন এবং বক্তব্যও রেখেছিলেন। তুফান কান্ড নিয়ে যখন সারাদেশে মিডিয়াঝড় বইছিল তখন শহর আওয়ামীলীগের নেতা ও ট্রাক মালিক সমিতির সভাপতি আব্দুল মান্নান ওরফে ফেম মান্নান গনমাধ্যম কর্মীদের বলেছিলেন, মতিনের সকল কর্মকান্ডের দায়িত্ব নেব। ওই সময় থেকেই মতিনের পক্ষে মানববন্ধনের চেষ্টা করা হলেও তা ভুন্ডুল হয়ে যায়। পরিবহন ধর্মঘটেরও হুমকি দেওয়া হয়। পুলিশ বার বার বলেছিলো অচিরেই মতিন গ্রেফতার হচ্ছে। কিন্ত অনেক সময় পার হলেও এখনও গ্রেফতার হয়নি। বরং দেখা যাচ্ছে, মতিনের পক্ষে কে বা কারা প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছে। তারই একটি বিশাল এই ঈদশুভেচ্ছার প্যানাসাইন বোর্ড।

বগুড়া পুলিশ বিভাগের একাধিক কর্মকর্তার সাথে কথা বলে জানা গেছে , তাদের ভাষায় একটি অস্ত্র মামলায় ২৭ বছর কারাদন্ড প্রাপ্ত এবং অন্য একটি মামলায় ওয়ারেন্টের আসামী আব্দুল মতিন সরকার বর্তমানে পলাতক রয়েছে। সেই পলাতক আসামির ছবিসহ বিশালাকারের প্যানাসাইনবোর্ড কে কিভাবে টাঙালো সে বিষয়ে জানতে চাইলে একজন পুলিশ কর্মকর্তা বলেন , মতিন পলাতক থাকলেও সে যেহেতু ট্রাক মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক তাই সংগঠনের পক্ষে অন্যরা এটি টাঙাতে পারে।
বগুড়া পৌরসভায় খোঁজ নিয়ে জানা গেছে , পৌরসভার অনুমোদন ছাড়াই এটা টাঙানো হয়েছে । বগুড়া পৌরসভার লাইসেন্স ইন্সপেক্টর ছামছুর রহমান জানান, মেয়র সাহেবের নির্দেশ পেয়ে সাতমাথায় গিয়ে দেখলাম প্যানিাটি টানানো হয়েছে। যে বিলবোর্ডে প্যানা বসানো হয়েছে সেটার বুকিং রয়েছে ঢাকার একরামুল ইসলাম এর নামে এবং বুকিং মানিও পরিশোধ রয়েছে। কে বা কারা এটি লাগিয়েছে তা জানি না। লাগালেও তার অনুমতি নেই।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন