বগুড়া সংবাদ ডট কম (নন্দীগ্রাম প্রতিনিধি মো: ফিরোজ কামাল ফারুক) : বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলায় মাদক ব্যবসার(গাঁজা) জন্য শ্বশুরবাড়ি থেকে যৌতূকের টাকা এনে না দেওয়ায় স্ত্রীকে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যাচেষ্টা এবং পরে কাঁচি দিয়ে স্ত্রীর চুল কেটে নেওয়ার ঘটনায় থানায় নারী শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই ইনামুল হক জানান, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় স্ত্রী মাহমুদা খাতুন বাদী হয়ে স্বামী-শ্বশুড় ও শ্বাশুড়ীর নামে মামলা দায়ের করেছেন। সে মামলায় স্বামী উকিল উদ্দিন (২৫), শ্বশুর আশরাফ আলী(৪৮) কে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃতদের বগুড়া কোর্ট হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। তবে শ্বাশুরী পলাতক থাকায় গ্রেফতার করা যায়নি। তাকে গ্রেফতার করতে পুলিশ মাঠে রয়েছে।
জানা গেছে, ছয় বছর আগে নন্দীগ্রাম উপজেলার সদর ইউনিয়নের গোছন গ্রামের দিনমজুর ইয়াদুল ইসলামের মেয়ে মাহমুদাকে বিয়ে করেন পাশ্ববর্তী বুড়ইল ইউনিয়নের চাপিলাপাড়া গ্রামের উকিল উদ্দিন। এ দম্পতির চারবছর বয়সী একটি ছেলে সন্তানও রয়েছে। উকিল উদ্দিন এক সময় দিনমজুরি দিতো। এখন মাদক ব্যবসায় জড়িয়েছে। মাদক ব্যবসার জন্য বাবার বাড়ি থেকে ৫০ হাজার টাকা এনে দিতে কিছুদিন হলো চাপ দিচ্ছিল। গত বুধবার বাবার বাড়ি থেকে ফেরার পর উকিল উদ্দিন বাবার বাড়ি থেকে নিয়ে আসা টাকা চায়। বাবা দিতে পারেনি জানালে সন্ধ্যা থেকে মারধর শুরু করে। একপর্যায়ে চিকিৎসার জন্য বাবার দেওয়া এক হাজার টাকাও দাবি করে। সেই টাকা না দেওয়ায় কয়েকদফা মারধর করে। রাত ১২টার দিকে অবস্থায় আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে বালিশ চাপা দেয় আমার স্বামী। চিৎকার দিলে ক্ষুদ্ধ হয়ে কাঁচি দিয়ে মাথার চুলের গোছা ধরে বেশ কিছু চুল কেটে দেয়।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন