বগুড়া সংবাদ ডট কম : বগুড়ায় ফিলিং ষ্টেশনের মধ্য এ্যাম্বুলেন্সের চাপায় মুরাদ হোসেন ওরফে মুরাদ (৩৫)নামের এক ব্যাক্তি নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরো দু’জন । মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার সকালে শহরতলীর নওদাপাড়া এলাকার টিএমএসএস ফিলিং ষ্টেশনে। পুলিশ এঘটনায় ওই এ্যাম্বূলেন্স চালককে গ্রেপ্তার করেছে।
নিহত মুরাদ শহরের মালতীনগর শান্তিবাগ এলাকার বাসিন্দা মৃত জালাল উদ্দিনের ছেলে। আহতরা হলেন একই এলাকার সোলেয়মানের ছেলে রঞ্জু (৩৪) এবং আনসারের ছেলে নজরুল ইসলাম(৩৬)।
পুলিশের একটি দায়িত্বশীল জানায় , শুক্রবার সকাল আনুমানিক ৯টার দিকে বগুড়া শহর থেকে বেশ কয়েকজন নির্মান শ্রমিক একটি বাসে করে পিকনিকে রংপুরে যাচ্ছিল। এসময় তাদের বহনকারী বাসটি গ্যাস নেয়ার জন্য এলাকার টিএমএসএস ফিলিং ষ্টেশনের ভেতরে গিয়ে থামে। এসময় বাস যাত্রী নিহত ও আহতরা বাস থেকে নেমে রাস্তার পাশে গিয়ে দাঁড়ায়।
এদিকে একই সময়ে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা রংপুর গামী একটি রোগী বহনকারী এ্যাম্বুলেন্স ফুয়েল নেবার জন্য ওই ফিলিং ষ্টেশনে এসে দাঁড়ায়। এসময় এ্যাম্বুলেন্সটি ফুয়েল নিয়ে গন্তব্যে যাত্রা করলে চালক এর নিয়ন্ত্রন হারায়। ফলে এ্যাম্বুলেন্সটি দাঁড়িয়ে থাকা বাস যাত্রীদের চাপা দেয়। এতে সেখানে দাঁড়িয়ে থাকা ৩ বাস যাত্রী গুরুত্বর ভাবে আহত হয়। অভিযোগ ,এসময় চালক নয় এ্যম্বুলেন্সটি হেলাপার চালাচ্ছিল।
স্থানীয়রা এসময় আহতদের দ্রুত উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে আহত মুরাদ মারা যায়। পুলিশ স্থানীয়দের সহায়তায় এ্যাম্বুলেন্স চালক রংপুর শহরের উত্তম বনিক এলাকার জমির উদ্দিনের ছেলে সাদেকুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করে। এঘটনায় বগুড়া সদর থানায় একটি মামলা হয়েছে। স্থানীয় ছিলিমপুর পুলিশ ফাঁড়ীর ইনচার্জ টিএসআই আশুতোষ বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান আতদের মধ্য এক জনের অবস্থা আশংকাজনক।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন