বগুড়া সংবাদ ডট কম (আদমদীঘি প্রতিনিধি সাগর খান) : বগুড়ার আদমদীঘিতে শুক্রবার জামাইয়ের লাঠির আঘাতে শ্বাশুড়ী মরিয়ম বেওয়া (৬৫) কে হত্যার ঘটনায় মামলা দায়ের। এ ঘটনায় আটককৃত জামাই শফিকুল ইসলাম (৩২) কে পুলিশ গ্রেফতার করেছেন। আদমদীঘি থানার অফিসার ইনচার্জ আবু সায়িদ মোঃ ওয়াহেদুজ্জামান গ্রেফতার কথা নিশ্চিত করে।
উল্লেখ্য, রংপুর হারাগাছের মিনাজবাজার গ্রামের মরিয়ম বেওয়ার মেয়ে মনোয়ারা বিবির সাথে কুড়িগ্রাম জেলার উলিপুরের পুরান্তপুর গ্রামের নুরুর ছেলে শফিকুল ইসলামের সাথে ৯/১০ বছর পূর্বে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে বগুড়ার আদমদীঘির বিভিন্ন বয়লার চাতালে শ্রমিকের কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে থাকেন। সম্প্রতি কয়েক বছর ধরে নিহত মরিয়ম বেওয়া ডহরপুর এলাকায় আনন্দ কুন্ডুর বয়লার চাতালে ও মেয়ে মনোয়ারা বিবি হাসানের বয়লার চাতালে শ্রমিকের কাজ করে। শফিকুল ইসলামের সাথে তার বনিবনা না হলে গত ৩/৪ সপ্তাহ পূর্বে তাদের মধ্যে বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে। গত শুক্রবার সন্ধ্যায় শফিকুল ইসলাম তার স্ত্রী মনোয়ারা বিবি কে মোবাইল ফোনে দেখা করতে বলে সে রাজি না হলে তার বড় ধরনের বিপদ হবে বলে হুমকি প্রদান করে মোবাইল ফোন কেটে দেয়। এর পর ওই রাতে উপজেলার ডহরপুর গ্রামে আনন্দ কুন্ডুর চাতালে শাশুড়ী মরিয়ম বেওয়ার শয়ন ঘরে ঢুকে লাঠি দিয়ে মাথায় অঘাত করে। রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয়রা মরিয়ম বেওয়াকে উদ্ধার করে প্রথমে উপজেলা হাসপাতালে নিলে অবস্থা অবনতি হলে তাকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল হাসপাতালে নেওয়া হলে সেখানে রাতেই মারা যায়। এ ঘটনায় নিহতের মেয়ে মনোয়ারা বেগম বাদী হয়ে রবিবার থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন