বগুড়া সংবাদ ডট কম (আদমদীঘি প্রতিনিধি সাগর খান) : দুর্বৃত্তের দাবী করা ৮ লাখ টাকা চাঁদা না দেওয়ায় ৫ দিনে এক মৎস্য চাষির পৃথক ২ পুকুরে বিষ দিয়ে প্রায় ১৫ লাখ টাকার মাছ নিধন করার ঘটনা ঘটেছে। দুর্বৃত্তায়নের ঘটনা ঘটেছে মৎস্য ভান্ডার হিসাবে খ্যাত বগুড়ার সান্তাহার পৌর শহরের পার্শ্বে ছাতিয়ানগ্রামে।
জানা গেছে, সান্তাহার শহরের ঘোড়াঘাট এলাকার বাসিন্দা আলহাজ্ব আজাহারুল ইসলাম ওরফে সাজ্জাদ শাহ নামের এক ব্যক্তি অন্যান্য ব্যবসার পাশাপাশি দীর্ঘ দিন ধরে মাছ চাষ ব্যবসা করে আসছে। এমতাবস্থায় ২৯ ডিসেম্বর বিকালে ওই ব্যবসায়ীর ছেলে মারিফুল ইসলাম দিপ্ত’র মোবাইল ফোনে অজ্ঞাত পরিচয়ের এক ব্যক্তি ফোন করে ৮ লাখ টাকা চাঁদা দাবী করে। দাবী করা চাঁদা না দিলে বড় ধরনের ক্ষতি করার হুমকি দেয়। চাঁদা না দেওয়ায় ১ জানুয়ারি সোমবার সন্ধা রাতে চাঁদাবাজ দুর্বৃত্ত ব্যবসায়ী আজাহারুল ইসলাম সাজ্জাদের গ্রামের বাড়ী শহর পাশের ছাতিয়ানগ্রামের ঘোড়াদহ নামক এলাকার পুকুরে বিষ প্রয়োগ করে। এতে প্রায় ৬ লাখ টাকা মুল্যের দেশীয় বিভিন্ন প্রকারের মাছ মরে যায়। এঘটনার পর দিন ব্যবসায়ীর ছেলে মারিফুল ইসলাম দিপ্ত আদমদীঘি থানায় অভিযোগ দায়ের করে। এতে ওই চাঁদাবাজ দুর্বৃত্ত ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। সে বৃহস্পতিবার বেলা সোয়া ১১টার দিকে ফের ফোন করে পুকুরে বিষ প্রয়োগের কথা স্বীকার করার পাশাপাশি দাবী করা চাঁদা না পেলে যে কোন সময় আরো বড় ধরনের ক্ষতি করবে মর্মে হুমকি দেয়। এর পর দিন শুক্রবার রাতে ছাতিয়ানগ্রামের পাতলাপীর মাজারের পশ্চিমে অবস্থিত আড়াইআনী পুকুরে বিষ প্রয়োগ করে। এতে ওই পুকুরে পালন করা প্রায় আড়াই লাখ বড় আকারের পাঙ্গাস মাছ মরে গেছে। যার মুল্য প্রায় ৯ লাখ টাকা বলে দাবী করেছেন ব্যবসায়ী আজাহারুল ইসলাম সাজ্জাদ শাহ।
এ বিষয়ে আদমদীঘি থানার অফিসার ইনচার্য আবু সায়িদ মোঃ ওয়াহেদুজ্জামান বলেন, টাকা দাবী করা চাঁদাবাজকে সনাক্ত ও গ্রেফতারে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে। আশা করি অচিরেই গ্রেফতার করা সম্ভব হবে।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন