বগুড়া সংবাদ ডট কম (ধুনট প্রতিনিধি ইমরান হোসেন ইমন) : বগুড়ার ধুনট উপজেলা যুবলীগের সদস্য ও ধুনট মডেল প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক সাংবাদিক ইমরুল কায়েস ঝিনুক খানকে পিটিয়ে আহত করেছে ছাত্রদল কর্মী দুই ভাই ও তার লোকজন। আহত ওই সাংবাদিককে ধুনট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্রে ভর্তি করা হয়েছে। ইমরুল কায়েস ঝিনুক খান ঢাকা থেকে প্রকাশিত দৈনিক খোলা কাগজ পত্রিকার বগুড়ার ধুনট উপজেলা প্রতিনিধি। এঘটনায় মঙ্গলবার রাতে যুবলীগ নেতা সাংবাদিক ইমরুল কায়েস ঝিনুক খান বাদী হয়ে ছাত্রদল কর্মী পূর্ব ভরনশাহী গ্রামের মৃত নবাব খানের ছেলে ফজলে রাব্বি খান ও আরিফ খান সহ অজ্ঞাত ২/৩ জনের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।
অভিযোগসূত্রে জানাগেছে, পৌর এলাকার পূর্ব ভরনশাহী গ্রামের শহিদুল্লাহ্ খান মুক্তা ও বাবলু খানের সাথে দীর্ঘদিন যাবত তাদের ভাতিজা ছাত্রদল কর্মী আরিফ খান ও রাব্বি খানের সাথে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছিল। এরই জের ধরে গত ১ জানুয়ারী রাত ৯টায় মদ্যপান করে রাব্বি ও তার দুই সহযোগি প্যারামাউন্ট স্কুলের পাশে মোটরসাইকেলের ওপর থেকে লাঠি দিয়ে শহিদুল্লাহ্ খান মুক্তার ছেলে সাংবাদিক ইমরুল কায়েস ঝিনুক খানের মাথায় আঘাত করে। পরে সে মাটিতে পড়ে গেলে তারা রাস্তার ওপরই তাকে বেদম পেটাতে থাকে। এসময় আরিফ খান সংবাদ পেয়ে সেও তাকে মারধর করে। পরে স্থানীয় লোকজন সাংবাদিক ইমরুল কায়েস ঝিনুককে উদ্ধার করে ধুনট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্রে ভর্তি করে।
সাংবাদিকের বোন ইরাফি পারভীন জানান, জমিজমা বিরোধের জের ধরে মাঝে মধ্যেই আরিফ ও রাব্বি তাদের গালাগালি ও হুমকি দিয়ে আসছিল। এছাড়া তার ভাই সাংবাদিক ঝিনুককে হত্যার জন্য রাব্বি ঢাকায় অস্ত্রের ট্রেনিং নিচ্ছি বলেও সে মোবাইলফোনে হুমকি দিয়েছিল।
এবিষয়ে ধুনট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মিজানুর রহমান বলেন, এঘটনায় অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
এদিকে সাংবাদিক ইমরুল কায়েস ঝিনুকের ওপর হামলার প্রতিবাদে এবং আসামীদের ২৪ ঘন্টার মধ্যে গ্রেফতারের দাবিতে ধুনট মডেল প্রেসক্লাব ও জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম প্রতিবাদ সভা ও মানববন্ধন সহ বিভিন্ন কর্মসূচি ঘোষনা করেছে।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

১টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন