বগুড়া সংবাদ ডট কম (ধুনট প্রতিনিধি ইমরান হোসেন ইমন):  বগুড়ার ধুনট সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান লাল মিয়াসহ চার জনের বিরুদ্ধে মাদক ব্যবসায়ীর কথিত স্ত্রী কর্তৃক ধর্ষন মামলা দায়ের করার প্রতিবাদে ধুনট-শেরপুর সড়ক অবরোধ করে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে স্থানীয় এলাকাবাসী। রবিবার সকাল ১০টা থেকে ১১টা পর্যন্ত মাঠপাড়া এলাকায় ওই কর্মসূচি পালন করা হয়।
মাঠপাড়া গ্রামের সমাজসেবক নওশের আলী মন্ডলের সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন ধুনট পৌরসভার মেয়র এজিএম বাদশাহ্, জেলা পরিষদের সদস্য ফজলুল হক, ইউপি সদস্য মিজানুর রহমান মজনু, প্রফুল্ল চন্দ্র সরকার, রিনা খাতুন, সমাজসেবক রইজ উদ্দিন, সদর ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারন সম্পাদক খায়রুল ইসলাম, সদর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক আব্দুল লতিফ প্রমূখ।
প্রতিবাদ সমাবশে বক্তারা বলেন, মাঠপাড়া গ্রামের মৃত সবুর সরকারের ছেলে ইউসুব আলী সরকার তার নিজ বাড়িতে দীর্ঘদিন যাবত মাদক ও দেহব্যবসা করে আসছে। এছাড়া তার বিরুদ্ধে হত্যা, চুরি ও ডাকাতি সহ একাধিক অপরাধের তার বিরুদ্ধে ধুনট থানায় ১২টি ও কাজিপুর ও শেরপুর থানায় আরো একাধিক মামলা রয়েছে। কয়েক মাস আগে তার বাড়িতে সিসি ক্যামেরা স্থাপন করে প্রকাশ্যে মাদক দ্রব্য বিক্রির অভিযোগে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করেছিল। সে জেল হাজতে থাকলেও তার স্ত্রী সাবিনা বেগম মাদক ব্যবসা চালিয়ে আসছিল। এবিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান লাল মিয়া মাদক সহ তার স্ত্রীকে আটক করে থানায় সোপার্দ করেছে। থানা পুলিশ নানা অপরাধে তাকে কয়েক দফা গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠালেও জমিনে মুক্ত হয়ে আবারো একই অপরাধে লিপ্ত হয়। এসব অনৈতিক কাজে বাধা দেওয়াসহ থানা পুলিশকে সহযোগীতা করায় চেয়ারম্যানের প্রতি ক্ষুদ্ধ হয়ে ওঠে ইউসুব আলী। প্রতিশোধ নিতে সে বিভিন্ন ধরনের অপপ্রচার করতে থাকে। একপর্যায়ে টাঙ্গাইল জেলার মধুপুর থানার মুক্তগাছা গ্রামের ইব্রাহীম হোসেনের মেয়ে আখি আকতার নামের এক নারীকে দিয়ে ২২/০৮/২০১৭ তারিখে বগুড়া নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে ইউপি চেয়ারম্যান সহ তার তিন কর্মীর বিরুদ্ধে মিথ্যা ধর্ষন মামলা দায়ের করেছে। ওই মামলার এক নম্বর সাক্ষী হয়েছে ইউসুব আলী। অথচ ওই নারীকে মাদক ব্যবসী ইউসুফ আলী ধর্মীয়ভাবে বিয়ে না করলেও গত এক বছর যাবত তাকে স্ত্রীর পরিচয়ে তার বাড়ীতে আশ্রয় দিয়ে তাকে দিয়ে দেহ ব্যবসা ও মাদক সরবরাহ করছে। এসব বিষয়ে স্থানীয় লোকজনও অবগত রয়েছে। তার এসব অনৈতিক কাজে বাঁধা দেওয়ায় ও পুলিশকে সহযোগিতা করায় সে তার কথিত স্ত্রীকে দিয়ে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মিথ্যা ধর্ষন মামলা দায়ের করেছে। এলাকাবাসী প্রতিবাদ সভায় এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী ইউসুফ আলীকে অতিদ্রুত গ্রেফতার করে মামলার সঠিক তদন্ত করার জন্য প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন