বগুড়া সংবাদ ডট কম (শাজাহানপুর প্রতিনিধি জিয়াউর রহমান) : বগুড়ার শাজাহানপুরে স্বামীর নির্যাতনে অতিষ্ঠ হয়ে শ্রীমতি মলি রানী মহন্ত (২৫) নামে ১ সন্তানের জননী গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে উপজেলার বেজোড়া হিন্দুপাড়ায় বাবার বাড়িতে শয়ন ঘরের তিড়ের সাথে গলায় ওড়না পেচিয়ে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে সে। শ্রীমতি মলি রানী উপজেলার বেজোড়া হিন্দুপাড়ায় মোহন কুমার মহন্তের মেয়ে। শুক্রবার সকালে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে পোষ্টমর্টেমের জন্য হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।
নিহতের স্বজনেরা জানান, ৪-৫ বছর পূর্বে নঁওগা জেলার বদলগাছী উপজেলার দাউদপুর গ্রামের মৃত বিরেন মহন্তের ছেলে পূলক কুমার মহন্তের সাথে শ্রীমতি মলি রানীর বিয়ে হয়। অনেক কষ্টে দিন মজুর বাবা শেষ সম্বল বসতবাড়ির একখন্ড জমির কিছু অংশ বিক্রি করে মেয়ের বিয়ে দেন। সংসার জীবনে তাদের শিশির নামে সাড়ে ৩-৪ বছরের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে। বিয়ের কিছু দিন পর থেকে স্বামী অকারনে মলি রানীকে বিভিন্ন ভাবে নির্যাতন করতো। নির্যাতনের মাত্রা বেড়ে গেলে প্রায় ১ দেড় মাস পূর্বে মলি রানী শিশু পুত্রকে সাথে নিয়ে বাবার বাড়িতে চলে আসে। কিন্তু এতদিনেও জামাই কোন খোঁজ-খবর নেয়নি। বাধ্য হয়ে জামাই ও তার স্বজনদের সাথে যোগাযোগ করলে জামাই ১লক্ষ টাকা চায়। কিন্তু দরিদ্র দিন মজুর বাবার পক্ষে কোন ভাবেই ১ লক্ষ টাকা দেয়ার সামর্থ ছিল না। তাছাড়া মেয়েও স্বামীর বাড়িতে যেতে চাচ্ছিল না। এমতাবস্থায় ছেলে ও মেয়ের অভিভাবকদের মধ্যে আপোষ-মিমাংসা হয়ে যায়। শুক্রবার ছেলে পক্ষের লোকজন এসে ছেলের বউকে নিয়ে যাওয়ার কথা ছিল। বাড়িতে প্রস্তুতিও চলছিল। এমতাবস্থায় বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে শিশু পুত্রকে বুকের দুধ খাইয়ে ঘুমিয়ে রেখে পাশের ঘরের তীড়ের সাথে গলায় ওড়না পেচিয়ে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে শ্রীমতি মলি রানী।
থানার ওসি জিয়া লতিফুল ইসলাম জানান, লাশ উদ্ধার করে পোষ্টমর্টেমের জন্য হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। এখনও কেউ কোন অভিযোগ করেনি। অভিযোগ না পেলে থানায় অপমৃত্যু মামলা দায়ের করে লাশ স্বজনদের হাতে হস্তান্তর করা হবে।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন