বগুড়া সংবাদ ডটকম (সারিয়াকান্দি প্রতিনিধি রাহেনূর ইসলাম স্বাধীন) : অপরাধীদের আতংক ও সাধারন মানুষের বন্ধু হয়ে প্রসংশা অর্জন করেছে সারিয়াকান্দি থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: সিরাজুল ইসলাম৷ তিনি চলতি বছর গত মে মাসে এ থানায় যোগদানের পর হতে পাল্টে গেছে নাগরিকদের জীবনচিত্র৷ মাদক নির্মুল থেকে শুরম্ন করে সকল অপরাধ চিত্র কমে গেছে৷ শুধু এখানেই নয়, এর পূর্ববর্তী কর্মস্থলেও তিনি একই কাজ করেছেন৷ জয়পুরহাটের কালাই থানাতে কর্মরত অবস্থায় তিনি সকল অপরাধ বন্ধ করে ফুল বাগান থেকে শুরু করে থানার সৌন্দয্যবর্ধনে বিশেষ ভূমিকা রেখেছেন৷ যার ফলে তিনি সেখানে অন্যতম সৌন্দর্যবর্ধন সৃষ্টিকারী একজন পুলিশ কর্মকর্তা হিসাবে খ্যাতি লাভ করেছেন৷
ওসি সিরাজুল ইসলাম চলতি বছরের মে মাসের ৭ তারিখে সারিয়াকান্দি থানায় অফিসার ইনচার্জ হিসাবে যোগদান করেন৷ যোগদানের পর তিনি থানার সার্বিক আইনশৃংখলা রৰা সহ মাদক নির্মুল ছাড়াও থানার সৌন্দর্য বর্ধণে ও মনোরম পরিবেশ সৃষ্টির জন্য বিশেষ অবদান রেখে চলেছেন৷ সিসি ক্যামেরার মাধ্যমে থানার সার্বিক কর্মকান্ড সার্বৰনিক মনিটরিং করে থাকেন৷ যে কোন অপরাধ কর্মকান্ড বন্ধ করার জন্য নিজে প্রস্তুত থেকে থানায় নিয়োজিত সকল অফিসার ও সিপাহিদের প্রস্তুত রাখেন৷ এছাড়াও আইনী সেবা নিতে আসা জনসাধারণ যাতে শানত্মিপূর্ণ পরিবেশে বসতে পারেন এজন্য আলাদা বসার যায়গার ব্যবস্থা করা হয়েছে এবং নির্যাতিত নারী ও শিশুদের জন্য নারী পুলিশ অফিসার দ্বারা হেল্প ডেস্ক চালু করা হয়েছে৷
স্বরেজমিনে দেখা গেছে, সারিয়াকান্দি থানায় সার্বিকভাবে সৃষ্টি হয়ে নতুন এক মনোরম পরিবেশের৷ একাধিক স্থানে সাইনবোর্ডে দেখা গেছে অত্র থানা চত্বরটি সিসিটিভি (সিসি ক্যামেরা) দ্বারা নিয়ন্ত্রিত৷ থানায় প্রবেশ গেইট, হাজত খানা, ডিউটি অফিসার রুম, গুদাম ঘর সহ একাধিক রুম সিসি ক্যামেরা দ্বারা নিয়ন্ত্রন করা হচ্ছে৷ থানায় কর্মরত একাধিক পুলিশ কর্মকর্তারা জানান, থানার পরিবেশ আগের পরিবেশের চেয়ে অনেক উন্নত ৷ ওসি সাহেব এ থানায় যোগদানের পর আবাসিক ভবনগুলোর সংস্কার করায় বসবাস উপযোগী হয়েছে৷ ফলে একটি মনোরম পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে৷ এছাড়াও ত্ম থানা চত্বরটিতে বিদ্যুত চলে গেলে অন্ধকার হয়ে থাকতো সৌর বিদ্যুত্‍ প্যানেল স্থাপনের মাধ্যমে বিদ্যুত্‍ বিহিন সময়ে থানা চত্তর আলোকিত হয়ে থাকে৷ তিনি থানা কেন্দ্রীয় মসজিদে ১২’শ ওয়ার্ড সৌরবিদ্যুত্‍ স্থাপনের মাধ্যমে এয়ারকন্ডিশনার (এসি)’র ব্যাবস্থা করেছেন৷ সেখানে সকল পুলিশ সদস্য ও দুরদুরনত্ম থেকে আসা অতিথী বৃন্দ সহ স্থানীয়রা নামায আদায় করছেন৷ শুধু তাই নয় তিনি এ থানায় যোগদানের পর থেকে এলাকার অসহায়, নির্যাতিত, অত্যাচারিত, দুর্বলদের জন্য হয়েছে অভিভাবক আর সন্ত্রাস, মাদক সেবী ও ব্যাবসায়ী সহ সকল অপরাধীদের জন্য হয়েছেন আতঙ্ক৷ আগামীতে অসমাপ্ত কাজকে সম্পূর্ণ করে অত্র থানাকে একটি মডেল থানা হিসাবে রূপ দিতে চান৷ এজন্য তিনি প্রশাসন ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধি সহ জনসাধারণের কাছে সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেছেন৷

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন