বগুড়া সংবাদ ডট কম : বগুড়ার শেরপুরে শের শাহ্ নিউ মার্কেট মালিক সমিতি কর্তৃক শত সাপেক্ষে মিস্ত্রি নিয়োগ করে প্রাপ্য বেশির ভাগ পরিশোধ না করিয়া আত্মসাতের চেষ্টা করার পায়তারা ও কোর্টের নির্দেশ না মানার অভিযোগ এনে গতকাল ১৯ ডিসেম্বর মঙ্গলবার বেলা ১২টার দিকে বগুড়া প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেছেন মোরশেদ আলম ও মোঃ ফরিদুল ইসলাম। মোরশেদ আলম লিখিত বক্তব্যে বলেন, বগুড়ার শেরপুর শেরশাহ্ নিউ মাকের্ট মালিক সমিতির সভাপতি এ.আর,মোহাম্মদ, সাধারন সম্পাদক মোঃ মোখলেছুর রহমান ও আহবায়ক মোঃ আব্দুল মান্নানের সহিত উক্ত মার্কেট এর বিল্ডিং এর কাজ সম্পাদনের জন্য গত ১৭ আগস্ট ১৫ তারিখে শর্ত সাপেক্ষে মিস্ত্রি নিয়োগের ঘোষনা অনুযায়ী ১ হাজার টাকার অফেরৎ যোগ্য ফরম পুরন করে। চুক্তি নামার শর্ত মোতাবেক ৯০ দিন এবং ৭০ দিন এবং পরবর্তীতে ৭০ দিনের মধ্যে কাজ শেষ করতে হবে। সেই শর্ত মোতাবেক কাজ হলেও মালিকের সহিত আমাদের চুক্তির শর্ত মোতাবেক কাজের বিনিময়ে প্রাপ্য বেশিভাগ পরিশোধ না করিয়া আ¥সাতের চেষ্টা করার পায়তারা করিলে আমরা বিভিন্ন তারিখে মালিকদেরকে পত্র দেই কিন্তু উক্ত পত্রের কোন উত্তর দেয় নাই। এমনকি পাওনা পরিশোধ করে নাই। ফলে আইনজীবির মাধ্যমে গত ৩ মার্চ লিগ্যাল নোটিশ প্রদান করি এবং পাওনা টাকা জন্য শ্রম আদালত রাজশাহীতে ০৫/১৭ শ্রম ও ০৬/১৭শ্রম মোকর্দ্দমা আনয়ন করি। মালিক পক্ষ অন্যায় ভাবে গত ১০ ও ২৭ মার্চ ৭ দিনের মধ্যে কাজ করার নোটিশ দিলেও তার আগেই চুক্তি ভঙ্গ করে অন্য মিস্ত্রিী দ্বারা করা করার উদ্দ্যেত হইলে চুক্তি ভাইলেশনের জন্য এবং পাওনা টাকা আত্মসাতের অভিযোগ করে শেরপুর থানায় এজাহার দাখিল করি কিন্তু তারা গ্রহন না করে পৌর মেয়র দেখবে বলে জানায়। কিন্তু পৌর মেয়র আমাদের সহিত বিমাতা সূলভ আচারন করে এবং আমাদের সাথে মালিকপক্ষের চলমান চুক্তি মালিক পক্ষ বাতিলের পত্র দিলে আমরা উক্ত চুক্তি বাতিলের বিরুদ্ধে মাননীয় চেয়ারম্যান শ্রম আদালতে ৪৩/১৭ শ্রম মোকর্দ্দমা আনয়ন করিয়া নিষেধাজ্ঞার আবেদন করিলে আদালত ১০ দিনের কারণ দর্শানোর আদেম দেন। শুনানী অন্তে শ্রম আদালত রাজশাহী উক্ত নিষেধাজ্ঞার আদেশ নামমঞ্জুর করেন। আমরা ঢাকায় ১৭/১৭ মিস আপীল মোকদ্দমা আনয়ন করিলে শুনানী অন্তে মালিকপক্ষদের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞার আদেশ প্রদান করেন এবং রাজশাহীর মামলার পরবর্তী কার্যক্রম স্থগিত রাখেন। মালিক পক্ষ আপীলেট ট্রাইব্যুনালের আদেশ অমান্য করিয়া তাহারা নির্মান কাজ অব্যহত রাখলে আমরা ০৫/১৭ভাইলেশন মোকর্দ্দমা করি। ট্রাইব্যুনালে বিশ্বাস যোগ্য প্রমানাদি দাখিল করলে ঘটনার সত্যতা পান। ফলে ভাইলেশন বিষয়ে ১৭ জানুয়ারী ১৮ইং তারিখে আদেশের জন্য দিন ধার্য করেন।
উক্ত সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরও বলেন, বিষয়টি নিয়ে এর আগেও সংবাদ সম্মেলন করেছি। আমরা সমাধানের জন্য বিভিন্ন মহলে আহবান রাখি কিন্তু মালিক পক্ষ কোন বিষয়েই কর্ণপাত না করে পূর্ববৎ রয়েছে এবং কোর্টের কোন আদেশও মানছেনা। আমরা নীপিড়িত ও নির্যাতিত হচ্ছি। এমনকি চরম মানবেতন জীবন যাপন করছি বলে তিনি বলেন। উক্ত সংবাদ সম্মেলনে ফরিদুল আলম,সুমনসহ বেশ কয়েকজন উপস্থিত ছিলেন।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন