বগুড়া সংবাদ ডট কম (আদমদীঘি প্রতিনিধি সাগর খান) : বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার সান্তাহারে শীতের আগমনে লেপ তোষক তৈরিতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে এই পেশার কারিগররা। শীত কে সামনে রেখে অনেকেই পুরোনো শীত বস্ত্র ঠিক করে নিচ্ছে। আবার অনেকে নতুন করে লেপ তোষক তৈরী করে নিচ্ছে। উত্তরাঞ্চলের শহর হিসাবে সান্তাহারে আগেই শীত নামে আসে। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। মফস্বলে নি¤œ আয়ের মানুষের শীত নিবারনের প্রধান অবলম্বণ কাঁথা। অনেক পরিবারের নারী সদস্যরা এখন পরিবারের কাজের ফাঁকে কাঁথা তৈরীতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে।
সান্তাহার স্টেশন রোডের পার্শ্বে লেপ তোষকের কারিগররা এখন ব্যস্ত লেপ তোষক তৈরীর কাজে। এখানকার একজন অভিক্ষ ব্যবসায়ী মহাতাব হোসেন জানান, পৈত্রিক সূত্রে তার এই ব্যবসায় আসা। শীতের এই সময়টিতে তাদের আয় ভাল হয়। সাধারনত কার্তিক মাসের শুরু থেকেই তাদের ব্যস্ততা বেড়ে যায়। বছরের এই সময় টুকু বাদ দিলে বাকী সময় অলস সময় পার করতে হয়। শফিক হোসেন নামের একজন কারিগর জানান, সাধারনত তিন ধরনের পদ্ধতিতে তারা লেপ তৈরী করেন। কার্পাস তুলার লেপ, গামেন্টস কালার তুলার লেপ ও গামেন্টস নরমাল তুলার লেপ। একটি উন্নত মানের কভার সহ লেপ তৈরীর মূল্য ১২০০ থেকে ১৮০০ টাকা। মাঝারী মানের লেপ তৈরীতে খরচ পড়বে ৭০০ থেকে ৯০০ টাকা। পাইকারী ও খুচরা ভাবে লেপ তোষক বিক্রি হয়। একটি বড় সাইজের লেপ তৈরী করতে চার থেকে ছয় ঘন্টা সময় লাগে। লেপ তৈরী ছাড়াও তাজিম, তোষক, বালিশ, গদি তৈরী করেন এই কারিগররা।
রক্তিম আলী নামের একজন কারিগর জানান, মধ্যবিত্ত ও নি¤œ আয়ের মানুষেরা তাদের খদ্দের। আধুনিক কম্বল প্রচলন হলেও তাদের খদ্দের যেহেতু সমাজের বড় অংশ তাই তাদের ব্যবসা নিয়ে তারা শংকিত নন।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন