বগুড়া সংবাদ ডটকম (সোনাতলা সংবাদদাতা মোশাররফ হোসেন) : সোনাতলা উপজেলার গজারিয়া গ্রামে মা হত্যাকারী পাগল ছেলে শাহআলম (৪৫) মোটরসাইকেল চালকের পথরোধ করে লাঠি দিয়ে কুপিয়ে মোটরসাইকেলটি ভাংচুর করেছে। ঘটনাটি গত মঙ্গলবার দুপুরের দিকে ঘটেছে। ওইদিন উপজেলার ছাতিয়ানতলা গ্রামের সাজেদুজ্জামান মন্ডল মোটরসাইকেল যোগে সোনাতলা থেকে গজারিয়া গ্রাম হয়ে নিজ বাড়ির দিকে যাচ্ছিলেন। যাবার পথে শাহ আলম একটি বাঁশের লাঠি নিয়ে আকস্মিক বাড়ির সামনের রাস্তার মাঝে দাঁড়িয়ে মোটরসাইকেল চালকের পথরোধ করে মোটরসাইকেলটিতে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে। এরুপ পরিস্থিতি দেখে মো’সাইকেল চালক ভয়ে পাশের বাড়িতে ওঠে। সেইসাথে পাগলের বড় ভাই অক্কু মিয়াও একই মো’সাইকেলে কোপাতে থাকে। ফলে ব্যাপক ক্ষতি হয় মো’সাইকেলটির। পরে আশেপাশের লোকজন পাগল ও তার বড় ভাইকে সড়িয়ে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় সেখানে অনেক মানুষের ভিড় জমে ওঠে। ঘটনাটি থানার পুলিশ জানেন। থানার এসআই সোহেল রানা ও এএসআই সামসুজ্জোহা জানান, শাহ আলম তার মাকে হত্যা করার পর থেকে পাগল হয়ে গেছে। তার মস্তিষ্ক সুস্থ নয়। শুনেছি এ পাগল মানুষের নানা প্রকার ক্ষতি করে থাকে। কিন্তু সে পাগল। তাই তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া যাচ্ছে না। পাগলটির সু-চিকিৎসা করা প্রয়োজন। গ্রামবাসী জানান, পাগলের মেজো দুই ভাইও হত্যা মামলার আসামী। তারা পলাকত রয়েছে। বাড়িতে থাকে শাহ আলম পাগল ও তার বড় ভাই অক্কু মিয়া। শাহ আলম প্রায়ই শিশু, ছাগল ছানা, ছোট বাছুর ও মানুষের ক্ষতি করে। অত্যাচার করে নানা ভাবে। তার বড় ভাই কোনো প্রতিকার না করে বরং পাগল ভাইয়ের পক্ষালম্বন করেন। তাদের দুই ভাইয়ের কর্মকান্ডে আমরা অতিষ্ঠ। প্রশাসনের মাধ্যমে এদেরকে মানসিক হাসপাতালে পাঠানো প্রয়োজন।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন