বগুড়া সংবাদ ডট কম (আদমদীঘি প্রতিনিধি সাগর খান) : বগুড়ার সান্তাহার জংশন ষ্টেশনের রেলওয়ে ইয়ার্ডে থাকা বিক্রিত পুরাতন ওয়াগনের যন্ত্রাংশ সরবরাহে অনিয়ম ও দূর্নিতীর অভিযোগ পাওয়া গেছে। সান্তাহার ষ্টেশনের উর্ধতন উপ-সহকারি প্রকৌশল বিভাগের (ক্যারেজ) কতিপয় কর্মকর্তা, জিআরপি পুলিশ, রেলওয়ে জেলা হিসাব শাখা ও গুদাম শাখা’র কতিপয় ব্যাক্তি এই অনিয়মের সাথে জড়িত রয়েছে বলে জানা গেছে। এ সকল বিভাগের লোকজন ওয়াগন ক্রেতার সাথে যোগসাজস করে আর্থিক লেনদেনের বিনিময়ে বিক্রিত মালের চেয়ে বেশি মালামাল সরবরাহ করছে বলে একাধিক সূত্রে জানা গেছে।


অভিযোগে জানা গেছে, রেলওয়ের পশ্চিম অঞ্চল জোনের রাজশাহী সরঞ্জাম নিয়ন্ত্রক বিভাগ চলতি সনের নয় জুলাই সান্তাহার ইয়ার্ডে থাকা অকেজো ৩০টি ওয়াগন বিক্রির জন্য দরপত্র আহবান করে। ওয়াগনগুলোর আনুমানিক ওজন নির্ধারন করা হয় ১৩৫ মেট্রিক টন। ঢাকার পান্না ব্যাটারী লিমিটেড সর্বচ্চ দরদাতা হিসেবে ২৭ লাখ টাকায় ওয়াগনগুলো কিনেন। চলতি মাসের মাঝামঝি সময় থেকে ওয়াগনের যন্ত্রাংশ সরবরাহ শুরু হয়। রেলওয়ের বিধান অনুযায়ি বিক্রিত ওয়াগনের মধ্যে ৩৪ ধরনের যন্ত্রাংশ (রিক্লেম আইটেম) মালামাল গ্রহনের সময় ক্রেতা রেলওয়েকে ফেরৎ দেবে। কিন্তু মালামাল সরবরাহের সময় রেলওয়ে’র দেকভালের দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তা কর্মচারীদের সাথে যোগসাজস করে ফেরৎযোগ্য মালামাল ক্রেতা নিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ক্রেতার নিজস্ব লোকজন দিয়ে মালামাল গ্রহনের নিয়ম থাকলেও সরেজমিন ইয়ার্ডে গিয়ে দেখা গেছে সান্তাহার ক্যারেজ বিভাগের লোকজন ক্রেতাকে মালামাল গ্রহনে সহয়তা করছে। এ ছাড়া রেলওয়ের নিজস্ব পরিবহন (ট্রলি) দিয়ে মালামাল বহনের কাজ করা হচ্ছে। মালামাল প্রদানের সময় রেলওয়ের সংস্লিষ্ট বিভাগের কোন কর্মকর্তাকে সেখানে পাওয়া যায়নি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রেলওয়ের একাধিক কর্মচারী জানান, দেকভালের দায়িত্বে থাকা কর্তা ব্যাক্তিদের সাথে ক্রেতা যোগসাজস করে নিদ্রীষ্ট্র পরিমানের চেয়ে বিপূল পরিমান মালামাল বেশি নিয়ে যাচ্ছে ক্রেতা। এদিকে বিক্রিত ওয়াগনের গায়ে প্রতিটির গড় ওজন প্রায় দশ মেট্রিক টন লেখা থাকলেও দরপত্রে মাত্র সাড়ে চার মেট্রিক টন ওজন ধরে সেগুলো বিক্রি করা হয়েছে। এ বিষয়ে মুঠোফোনে সান্তাহার ক্যারেজ বিভাগের উর্ধতন উপ-সহকারি প্রকৌশলী আনছার আলি মৃধার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি অতিরিক্ত মালামাল প্রদানের বিষয় অস্বীকার করে বলেন, নিয়ম অনুসরন করেই ক্রেতাকে মালামাল সরবরাহ করা হচ্ছে। এ বিষয়ে ক্রেতার প্রতিনিধির সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন