বগুড়া সংবাদ ডট কম (দুপচাঁচিয়া প্রতিনিধি আবু রায়হান) : বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলায় কুরবানীর ঈদ কে সামনে রেখে শেষ মুহুর্তে জমে উঠেছে উত্তরাঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী ধাপ সুলতানগঞ্জ হাটের পশুর হাট। দুপচাঁচিয়া পৌরসভা মালিকানাধীন এই হাটের নাম করন করা হয় বিশিষ্ট সুফী সাধক হযরত সুলতান (রহঃ) এর নাম অনুসারে। দুপচাঁচিয়া পৌর শহরের অভ্যন্তরে অবস্থিত ঐতিহ্যবাহী এই ধাপের হাট বসে সপ্তাহে ২ দিন, রবিবার ও বৃহস্পতিবার। কুরবানীর ঈদ কে সামনে রেখে জমে উঠেছে গতকাল রবিবার পশুর হাট। হাটে চাহিদার তুলনায় গরু ছাগল বেশি হওয়ায় মূল্য ছিল হাতের নাগালের বাহিরে। শেষ মুহুর্তে গতকাল বৃহস্পতিবার হাটে গরুর সর্বোচ্চ দাম দেখা যায় ২ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা ও সর্বনিম্ন ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা। ছাগলের সর্বনিম্ন দাম দেখা যায় ৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা। এই হাটে বিভিন্ন ধরনের দেশি বিদেশি গরু লক্ষ করা যায়। এই হাটে উপজেলার ইসলামপুর গ্রামের আব্দুল বাছেদ তাঁর গৃহপালিত বোকনা গরুর দাম চেয়েছেন ২ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা। তিনি জানান, ক্রেতারা তাঁর গরুর দাম হেঁকেছে ২ লক্ষ টাকা। তিনি আশা করেন নির্ধারিত দামেই তিনি গরুটি বিক্রি করবেন। রাজধানী সহ উত্তরাঞ্চলের প্রায় অধিকাংশ জেলা থেকে বেপ্যারি, ব্যবসায়ীরা পশু কেনার জন্য এই হাটে আসে এবং ট্র্যাক দিয়ে লোড করে তাঁরা দেশের বিভিন্ন জায়গায় পশু নিয়ে যায়। যার ফলে চাহিদার তুলনায় গরু আমদানি অনেকটা বেশি হলেও মূল্য ছিল অস্বাভাবিক। যার ফলে অনেক বিক্রেতাদের অধিকাংশ গরু ফেরত নিয়ে যেতে দেখা যায়। মূল্য ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে না থাকায় অধিকাংশ ক্রেতারা পরবর্তী বৃহস্পতিবার শেষ হাটের আসায় গরু না কিনে ফেরত যেতে দেখা যায়। দুপচাঁচিয়া পৌরসভার তত্ত্বাবধানে হাটটি পরিচালিত হওয়ায় পৌরসভা ও উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে শেষ মুহুর্তে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।
গত বৃহস্পতিবার হাটে গরু বিক্রি করতে এসে উপজেলার ইসলামপুর গ্রামের আব্দুল বাছেদ জানায়,তার গরুর দাম ক্রেতারা হেঁকেছেন ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা।দাম তার মনমত না হওয়ায় তিনি তার গরুটি বাড়িতে ফেরত নিয়ে যায়।
পৌর মেয়র বেলাল হোসেন জানান, ক্রেতা বিক্রেতাদের নিরাপদে ক্রয় বিক্রয়ের জন্য তিনি যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করেছেন।
ইযারা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের পক্ষে আবু সাঈদ জানান, শেষ মুহুর্তে কুরবানীর হাটে ক্রেতা বিক্রেতারা স্বচ্ছন্দে ক্রয় বিক্রয় করছে। সব মিলিয়ে শেষ মুহুর্ত পর্যন্ত ব্যাপক হাতে জমে উঠেছে উত্তরাঞ্চলের এ সর্ববৃহৎ এই পশুর হাট।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন