বগুড়া সংবাদ ডট কম (কাহালু প্রতিনিধি এম এ মতিন) : বগুড়ার কাহালুর দূর্গাপুর ইউনিয়নের নওদাপাড়া গ্রামের প্রবাসী আতিকুর রহমানের স্ত্রী মালা (২২) কে ধর্ষনের চেস্টা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ। একই গ্রামের প্রতিবেশী মৃতঃ মোহাম্মাদ আলীর পুত্র নুরে আলম পটন (৪৫) এর বিরুদ্ধে গত ২৯/১০/২০১৭ ইং তারিখে প্রবাসীর স্ত্রী বাদী হয়ে শতাধিক গ্রামবাসী স্বাক্ষরিত একটি অভিযোগ কাহালু উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে দেন। অভিযোগে উল্লেখ্য করা হয়, মালা খাতুনের স্বামী প্রায় ২ বছর হলে কাতারে থাকায় প্রতিবেশী লম্পট নুরে আলম মালাকে প্রায়ই কু-প্রস্তাব দেয় এবং উত্ত্যক্ত করে। গত ০৪/১০/২০১৭ ইং তারিখ ভোরে শ্বশুড়-শ্বাশুড়ী বাড়ীতে না থাকার সুযোগে নুরে আলম মালার ঘরে ঢুকে জোবপূর্বক ধষর্নের চেস্টা করলে তার চিৎকারে পাশের বাড়ীর লোকজন এলে সে পালিয়ে যায়। গ্রামবাসী জানায়, প্রথমে অভিযোগ দূর্গাপুর ইউ পি চেয়ারম্যান বদরুজ্জামান খান বদেরকে দিলে তিনি বিভিন্ন কৌশলে কালক্ষেপন করে অভিযোগ নেননি। অবশেষে তারা বাধ্য হয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে অভিযোগ দেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে সোমবার উপজেলা নির্বাহি অফিসার উভয় পক্ষকে নিয়ে তার নিজ কার্যলয়ে বসেন। এ সময় ইউপি চেয়ারম্যান বদরুজ্জামান খান বদেরও উপস্থিত ছিলেন। সুষ্ঠু বিচারের আশায় গ্রামের অনেক নারী পুরুষ উপস্থিত হয়। লম্পট নুরে আলমের কোন শাস্তি না হওয়ায় সবাই আইনের প্রতি হতাশা ব্যক্ত করেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেকে বলেন, ইউপি চেয়ারম্যান যোগসাজস্বে অপরাধীর পক্ষ নেওয়ায় অপরাধী শাস্তি পেলনা। এলাকার একাধিক সূত্রে জানা যায়, নুরে আলম এ ঘটনা ছাড়া ও বিভিন্ন সময়ে অনেক নারী কোলেনংকারি ঘটনায় সে জড়িত। এ ধরনের ঘটনায় বেশ কয়েক বার তার বিরুদ্ধে গ্রামে শালিসও হয়েছে। অথচ তার কোন বিচার হল না। এ ব্যাপারে কাহালু উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আরাফাত রহমান বলেন, ঘটনার সাথে সাথে তার নিকট অভিযোগ দিলে তিনি ব্যবস্থা নিতে পারতেন। কাল বিলম্ভ হওয়ায় তাদের আদালতের আশ্রয় নেওয়ার পরামর্শ দেন বলে জানান। তবে শুনানী দিন আদালত অমান্য করায় দন্ডবিধির ৫০৯ ধারা মোতাবেক নুরে আলমের ২ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন