bograsangbad_Logoবগুড়া সংবাদ ডট কম (আদমদীঘি প্রতিনিধি সাগর খান) : বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার নসরতপুরে পুর্ব শত্রুতার জেরে প্রতিপক্ষের লোকজন বৃদ্ধাসহ দুই নারীর উপড় পৃথক হামলা চালিয়ে মারপিট ও নগদ টাকা ছিনতাই এবং মারপিটে আহত নারীদের হাসপাতালে নিয়ে যেতে বাধা প্রদান করার অভিযোগ মিলেছে।
জানা গেছে, আদমদীঘি উপজেলার লক্ষিপুর গ্রামের আওয়ামীলীগ নেতা তহিদুল ইসলাম ও নব্য আওয়ামীলীগার আব্দুল কাদের সেদ্দা গ্রুপের মধ্যে আধিপত্য বিস্তার করা নিয়ে দীর্ঘ দিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। এনিয়ে প্রায়ই রাস্তা-ঘাটে এক অপরের লোকজনকে মারপিটের ঘটনা ঘটিয়ে থাকে। এর জের ধরে বুধবার লক্ষিপুর গ্রামের মৃত বছির উদ্দিনের স্ত্রী শাহেদা বেওয়া (৬৫) ব্যাংক থেকে ২০ হাজার টাকা তুলে বাড়ি ফিরছিল। বিকাল ৫টার দিকে গ্রামের নিকট রেলক্রসিংয়ে পৌঁছলে তহিদুল, ছালাম, মোস্তফা, শাহিন, জুয়েল, বাবু, ফেরদৌস সহ ১০/১২জন শাহেদার উপড় হামলা চালিয়ে মারপিট করে তার কাছে থাকা টাকা ছিনতাই করে ফেলে রেখে যায়। পরে শাহেদার আত্মীয় স্বজন উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যেতে লাগলে হামলাকারিরা বাধা দেয়। এর পর ওই গ্রামের ওয়ালুল ইসলামের স্ত্রী ফরিদা বেগম উপজেলার তাঁত পল্লী শাওইল থেকে তার অর্ধমাসের মজুরি বাবদ পাওয়া ৪ হাজার টাকা নিয়ে বাড়ি ফেরার পথে বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে নসরতপুর তিনমাথা নামক স্থানে পৌঁছলে, বিধবা শাহেদার উপড় হামলাকারিরা ফরিদার উপড়ও হামলা চালিয়ে বেদম মারপিট ও টাকা ছিনতাই করে। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ওই গ্রামে গিয়ে আহত দুই নারীকে উদ্ধার করে উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করে দেয়। এ বিষয়ে অভিযুক্ত তহিদুলের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন আমার প্রতিপক্ষ পুর্ব পরিকল্পনা করে মহিলাদের আমার ও আমার লোকজনের বাড়িতে পাঠিয়ে অকথ্য ভাষায় গালাগালি করলে বাড়ির মহিলা দ্বাড়া আক্রান্ত হয়। এর সাথে আমি বা আমার পুরুষ লোকজন জড়িত নয় এবং হাসপাতালে নিয়ে যেতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ মিথ্যা। এ রিপোর্ট পাঠানো সময় পর্যন্ত থানায় অভিযোগ বা মামলা হয়নি। তবে মামলার প্রস্তুতি চলছিল বলে জানা গেছে।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন