বগুড়া সংবাদ ডট কম : বগুড়া ডায়াবেটিক সমিতির ব্যবস্থাপনায় যথাযোগ্য মর্যাদায় ১৪ই নভেম্বর বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস ২০১৭ পালন করা হয়। এবারের প্রতিবাদ্য বিষয়-“সকল গর্ভধারণ হোক পরিকল্পিত”। দিনের প্রধান কর্মসুচী হিসাবে সকাল ৯.০০ টায় বেলুন ও কবুতর উড়িয়ে বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস-২০১৭ এর উদ্বোধন করেন বগুড়ার পুলিশ সুপার মোঃ আসাদুজ্জামান বিপিএম (এডিশনাল ডিআইজি হিসাবে পদোন্নতিপ্রাপ্ত), অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সুফিয়া নাজিম এবং বগুড়া ডায়াবেটিক সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব মমতাজ উদ্দিন। এরপর তাদের নেতৃত্বে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালী বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। অন্যান্য কর্মসূচী হিসাবে সকাল ১০টা হতে বগুড়া ডায়াবেটিক সমিতি প্রাঙ্গনে বিনামূল্যে ডায়াবেটিস নির্ণয় ক্যাম্প এবং ১০.৩০টায় সমিতির হলরুমে ডায়াবেটিস সচেতনামূলক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। ফ্রি ডায়াবেটিস নির্ণয় ক্যাম্পে প্রায় ৫ শতাধিক আগ্রহী মানুষের বিনামূল্যে ডায়াবেটিস নির্ণয়ের পরীক্ষা করা হয়।
র‌্যালীতে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বগুড়া ডায়াবেটিক সমিতির সহ-সভাপতি এ্যাডঃ মকবুল হোসেন মুকুল, মাহবুব হামিদ তারা, যুগ্ম সম্পাদক আব্দুল ওয়াহাব তারেক, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল্লাহেল কাফি-ছানা, নির্বাহী সদস্য ডাঃ আলী আহমেদ আলম, মোঃ মাফুজুল ইসলাম রাজ, আসিফ মোহাম্মদ খান রনি, এএম রেজাউল হক মন্টু, তোফাজ্জল হোসেন, এমএ জিন্নাহ, মিজানুর রহমান। এছাড়াও বগুড়া ডায়াবেটিক সমিতির অনেক আজীবন সদস্যবৃন্দ ও বগুড়া স্বাস্থ্যসেবা হাসপাতালের সকল চিকিৎসক, কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ এবং বিভিন্ন ফার্মাসিউটিক্যালস কোম্পানীর প্রতিনিধিগণ র‌্যালীতে অংশগ্রহন করেন।
র‌্যালী শেষে সংস্থার হলরুমে আলহাজ্ব মমতাজ উদ্দিনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বিষয়ভিত্তিক বক্তব্য রাখেন বগুড়া স্বাস্থ্যসেবা হাসপাতালের গাইনী বিশেষজ্ঞ ডাঃ রোকসানা বানু এবং শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ ও সংস্থার ক্লিনিক্যাল কো-অর্ডিনেটর ডাঃ মোঃ আলী আশরাফ। আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, বিভিন্ন সমীক্ষা থেকে দেখা গেছে বাংলাদেশে প্রায় ৫০ শতাংশ গর্ভধারণ অপরিকল্পিত এবং বাংলাদেশে গর্ভকালীন ডায়াবেটিস আক্রান্তের হারও প্রায় ৬-১৪ শতাংশ। দিন দিন গর্ভবতী নারীদের ডায়াবেটিসসহ গর্ভকালীন অন্যান্য জটিলতাও বৃদ্ধি পাচ্ছে। আন্তর্জাতিক ডায়াবেটিস ফেডারেশন তাই এবছর গর্ভকালীন জটিলতা বিশেষ করে গর্ভকালীন ডায়াবেটিসের ওপর গুরুত্বারোপ করতে যাচ্ছে। অবশ্য বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতি ইতিমধ্যেই গর্ভকালীন ডায়াবেটিস প্রতিরোধ এবং গর্ভধারণপূর্ব বিবিধ সেবা দিতে বিশেষ প্রকল্প হাতে নিয়েছে। আশার বিষয় এই যে, বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতির উক্ত বিশেষায়িত সেবাসমূহ বগুড়া ডায়াবেটিক হাসপাতালেও শীঘ্রই শুরু হতে যাচ্ছে। বক্তারা আরও জানান, পৃথিবীতে প্রতিদিন প্রায় ৮৩০ জন মহিলা গর্ভধারণ ও সন্তান প্রসব জটিলতায় মারা যান। এদের মধ্যে ৯৯ শতাংশ মায়ের মৃত্যু ঘটে বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশগুলোতেই। তাই অপরিকল্পিত গর্ভধারন এবং গর্ভকালীন ডায়াবেটিস সম্পর্কে আমাদের আরও বেশী সচেতন হওয়া প্রয়োজন। বক্তারা প্রতিপাদ্য বিষয়ের সাথে সঙ্গতি রেখে আহ্বান করেন, আগামীর সুস্বাস্থ্য আমাদের অধিকার, তাই আগামী দিনকে বদলাতে উদ্যোগ নিতে হবে আজই। কারন ১০ জনের মধ্যে ১ জন নারী ডায়াবেটিসে আক্রান্ত।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন