বগুড়া সংবাদ ডটকম (কাহালু প্রতিনিধি এম এ মতিন) : গত ২৫ অক্টোবর দৈনিক চাঁদনী বাজার পত্রিকা সহ একাধিক স্থানীয় পত্রিকায় কাহালুর জিয়াখুর উচ্চ বিদ্যালয়ের অবৈধ ভাবে গাছ কর্তন শিরোনাম প্রকাশিত হয়। উক্ত প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদে গত ১১ নভেম্বর বিকেলে কাহালু মডেল প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন ওলাহালী গ্রামের মৃতঃ এজাতুল্লা প্রামানিকের পুত্র কাহালুর জিয়াখুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি, অত্র বিদ্যালয়ের জায়গাদাতা ও প্রতিষ্ঠাতা নুর-মোহাম্মাদ। তিনি তার লিখিত বক্তব্যে বলেন, অত্র বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে এলাকার কিছু ব্যক্তি আমার ছেলেকে সমাজে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য ভুল বুঝিয়ে গত ২৪ অক্টোবর উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। প্রকৃতপক্ষে অত্র বিদ্যালয় আমি প্রতিষ্ঠা করি এবং বিদ্যালয়ের জন্য ওলাহালী মৌজার ৪০ দাগ বর্তমান ৪৪ দাগের মোট সম্পত্তির ২.৬৮ একর এর মধ্যে ৫৩ শতক জায়গা দান করেছি। আমার ছোট ভাই মুনসুর রহমান বগুড়ার শহিদুল হক রিমু ও সাব্বির কামালের নিকট উক্ত দাগ হতে ৬৭ শতক জায়গা বিক্রি করে। গত ২৯/০৩/০৪ সালে আমার ছেলে বুকল হোসেন বগুড়ার শহিদুল হক রিমু ও সাব্বির কামালের নিকট হতে কবলা মুলে ৬৭ শতক জায়গা ক্রয় করে এবং দলিলে হাত মাপ পুর্ব সাইডের উত্তর-দক্ষিণ লম্বা উলে¬খ আছে। জায়গা ক্রয় করার পর আমার ছেলে উক্ত স্থানে বিভিন্ন প্রজাতির গাছ লাগান। মোট সম্পত্তির ২.৬৮ একর এর মধ্যে ৫৩ শতক জাযগা ছাড়াও আমি আবারও ২০০৫ সালে ৪৪ দাগের বিদ্যালয়ে জন্য পুকুরের মধ্যে ১৮ শতক জাযগা দান করি এবং উক্ত দাগের বাকী অংশ আমার ছেলে বকুল হোসেনকে উইল করে দেয়। আমার ছেলে যে গাছগুলো কর্তন করেছে সেই সম্পত্তির কাগজ পত্র দেখে সুষ্ঠু বিচারের জন্য সাংবাদিকদের ভাইদের মাধ্যমে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সু-দৃষ্টি কামনা করছি। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ওলাহালী গ্রামের বকুল হোসেন, রব্বানী, আব্দুল রাজ্জাক, আব্দুল বারী প্রমূখ।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন