বগুড়া সংবাদ ডট কম (দুপচাঁচিয়া প্রতিনিধি আবু রায়হান) : দুপচাঁচিয়ায় ক্বওমী মাদ্রাসার সুপার এক শিশু শিক্ষার্থীকে বেধরক মারপিট করেছে। আহত শিশু শিক্ষার্থী বিপ্লব আলম(১২) বর্তমানে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে। সে উপজেলার জয়পুরপাড়া মহল্লার ট্রাক চালক জাহাঙ্গীর আলমের ছেলে।
আহত শিক্ষার্থীর পরিবার সূত্রে জানা যায়, বিপ্লব উপজেলা সদরের মিফতাহুল ক্বওমী হাফেজিয়া মাদ্রাসার আরবী বিভাগের ছাত্র। গত ৪/৫দিন সে মাদ্রাসায় অনুপস্থিত ছিল। গত ২২আগস্ট ওই শিক্ষার্থীর বাবা তাকে সকালে মাদ্রাসায় রেখে আসেন। তার কিছু পরেই মাদ্রাসার সুপার আব্দুল লতিফ তাকে বেধড়ক মারপিট করে এবং মাদ্রাসা থেকে বের না হতে কঠোর হুশিয়ারি উচ্চারণ করেন। ওইদিন সন্ধ্যায় এশার নামাজ পড়ার সময় সে কৌশলে মাদ্রাসা থেকে পালিয়ে বাড়িতে আসে এবং তাকে মারপিটের বিষয়টি তার পরিবারকে জানায়। তার অবস্থা দেখে রাতেই পরিবারের লোকজন তাকে দুপচাঁচিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে দেয়।
আহত বিপ্লবের বাবা ট্রাক চালক জাহাঙ্গীর আলম মুঠোফোনে জানান, তিনি বর্তমানে ট্রাক নিয়ে রংপুরে অবস্থান করছেন। তিনি আরও জানান, সেখান থেকে ফিরে এসে নির্যাতনকারী ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করবেন।
মাদ্রাসার সুপার আব্দুল লতিফ মুঠোফোনে জানান, সে মাদ্রাসায় নিয়মিত আসে না। আসলেও কাউকে কিছু না বলে মাদ্রাসা থেকে চলে যায়। এ কারনেই তাকে শাসন করেছি।
দুপচাঁচিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) আব্দুর রাজ্জাক মুঠোফোনে জানান, শিক্ষার্থীকে মারপিটের কথা শুনে থানার এসআই আব্দুস সালামকে পাঠিয়েছি। এখন পর্যন্ত শিক্ষার্থীর পরিবারের পক্ষ থেকে কেউ অভিযোগ করেননি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন