বগুড়া সংবাদ ডট কম (আদমদীঘি প্রতিনিধি সাগর খান) : বগুড়ার আদমদীঘিতে ফেরদৌসি বেগম (২৪) নামের এক গৃহবধুকে যৌতুকের দাবীতে স্ত্রীকে মারপিট ও ধারা চোখা অস্ত্রের আঘাতে হত্যার ঘটনায় ২৪ দিন পর যৌতুক লোভী স্বামী, শ্বশুর শাশুড়ী সহ ৮ জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত ২/৩ জনের বিরুদ্ধে নিহতের মা আছমা বেগম বাদী হয়ে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এজাহার ভুক্ত অসামীরা হলেন, উপজেলার শিববাটি জয়দেবপুর গ্রামের আল আমিন (২৬), জামাল উদ্দীন (৪৫), আছমা বিবি (৪২), জুলিয়া (২২), হালিম (৩৫), হেলাল (৩২), আতোয়ার (৪২), সাহারা বিবি (৫৫)। মামলার তদন্তকারী অফিসার এস আই আব্দুর রাজ্জাক এই মামলায় সোমবার ঢাকার খিলগাঁও এলাকা থেকে আদমদীঘির তিলোচ সিতাহার পাড়ার আশরাফের ছেলে হেলাল(৩৪)ও তার ভাই হালিম(৩১)কে গ্রেফতার করেন। গ্রেফতারকৃতদের দুই জনকে বুধবার পুলিশ আদালতে পাঠিয়েছে। এর আগে পুলিশ এই মামলায় সাহারা বিবি কে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরন করেছেন।
মামলা সুত্রে জানা যায়, আদমদীঘি উপজেলার কুন্দুগ্রাম ইউনিয়নের তিলোচ সিতাহার পাড়ার প্রবাসী বিদ্যুত আলী খানের মেয়ে ফেরদৌসি বেগমের ৬ বছর পূর্বে একই এলাকার জয়দেবপুর পাড়ার জামাল উদ্দিন আকন্দের ছেলে আল আমিনের সাথে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে যৌতুক লোভী স্বামী আল আমিন ও তার সহযোগীরা ফেরদৌসীর নিকট ৩ লক্ষ টাকা যৌতুক দাবী করে। ফেরদৌসীর পরিবার আল আমিনের দাবী পুরুন করতে ২ লক্ষ টাকা যৌতুক প্রদান করেন। এরপর আল আমিন ক্ষান্ত হয়নি পুনরায় আরো ১ লক্ষ টাকা যৌতুক হিসাবে দাবী করে ফেরদৌসিকে নির্যাতন করে আসছিল। যৌতুকের টাকা দিতে অস্বিকার করলে আল আমিন ও তার সহযোগীরা ক্ষিপ্ত হয়ে গত ২২ সেপ্টেম্বর গৃহবধু ফেরদৌসী বেগমকে হত্যার উদ্যেশে মারপিট করে ধারালো চোখা অস্ত্র দ্বারা মাথায় আঘাত করে বাড়ীর খলিয়ানে ফেলে রাখে। স্থানীয়রা উদ্ধার করে উপজেলা হাসপাতালে নিলে কর্মরত চিকিৎসক মৃত ঘোষনা করে। এ ঘটনায় থানায় একটি ইউডি মামলা দায়ের করা হয় এবং ওই দিন পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরন করেন। ওসি ওয়াহেদ্দুজ্জামান বলেন, ময়না তদন্তের রির্পোট হাতে পাওয়ার পর এ ঘটনায় হত্যা মামলা দায়ের হয়েছে।

 

 

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন