বগুড়া সংবাদ ডট কম : কর্মজীবী পিতা মাতাদের সন্তানদের পারিবারিক পরিবেশে শিশুদের ছোট থেকেই নৈতিক সুশিক্ষা, শারীরীক ও মানসিকভাবে বেড়ে ওঠার জন্য স্বাস্থ্য সম্মত খাবার সরবরাহ এবং প্রাক প্রাথমিক শিক্ষা প্রদানের অঙ্গীকার নিয়ে বগুড়ায় যাত্রা শুরু করেছে উত্তরাঞ্চলের বেসরকারি উদ্যোগে গড়ে ওঠা প্রথম শিশু দিবাযত্ন কেন্দ্র “কিডস হ্যাভেন”। বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১ টায় শহরের জ্বলেশ্বরীতলাস্থ এন কে টাওয়ারের ৫ম তলায় এই শিশু দিবাযত্ন কেন্দ্রের উদ্বোধন করেন বগুড়ার পুলিশ সুপার মোঃ আসাদুজ্জামান, বিপিএম।
উদ্যোক্তরা জানান, কর্মব্যস্ততার শহুরে জীবনে পিতা-মাতা উভয়ই যখন চাকুররিজীবী, তখন তাদের শিশু সন্তানদের লালন পালন করা নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়তে হয়। কারণ এখনও বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানে নেই কর্মজীবীদের সন্তানদের জন্য আলাদা করে কোন যত্ন কেন্দ্র। ফলে অনেকেই তাদের সন্তানদের বাসায় কাজের মানুষদের কাছে তালাবদ্ধ করে রেখে জীবন জীবকিার তাগিদে ঘরের বাইরে যেতে বাধ্য হন। কর্মক্ষেত্রে কাজের মধ্যেই উৎকণ্ঠায় থাকেন বাড়িতে রেখে আসা শিশুটির যত্ন নিয়ে। ফলে নিশ্চিন্তে তাদেরর কাজটিও তারা করতে পারেন না। আর এসব দুঃচিন্তা থেকে পিতা- মাতাদের মুক্তি দিতেই বগুড়ার ৫ শিক্ষিত যুবক গড়ে তুলেছেন “কিডস্ হ্যাভেন” নামের এই শিশুদের দিবা যত্ন কেন্দ্র। আর এটিই হচ্ছে উত্তরাঞ্চলের কোন জেলা শহরে বেসরকারিভাবে প্রতিষ্ঠিত শিশুদের জন্য প্রথম দিবা যত্ন কেন্দ্র।
আর উদ্যোক্তাদের ৫ জনের মধ্যে একজন শিক্ষক, একজন কৃষিবিদ, একজন ব্যবসায়ী একজন চিকিৎসক ও একজন সমাজ বিঞ্জানী রয়েছেন।
প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক সমাজ বিঞ্জানী আশরাফুল হক তুহিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বগুড়া চেম্বার অব কমার্সের পরিচালক আবুল কালাম আজাদ, জ্বলেশ্বরীতলা ব্যবসায়ি সমিতির সভাপতি রেজাউল বারী ঈসা, সাধারন সম্পাদক এ্যাডোনিস বাবু তালুকদার ও সাবেক সভাপতি সাইফুল ইসলাম রোলা প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। এসময় প্রতিষ্ঠানের অপর ৪ প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক পরিচালক কৃষিবিদ শাহীন হোসেন, বিশিষ্ঠ ব্যবসায়ী প্রদীপ কুমার প্রসাদ, বিশিষ্ট চিকিৎসক ডাঃআকতারুল হুদা সাঈদ ও শিক্ষক গোলাম মওলা সোহাগ উপস্থিত ছিলেন।
উদ্বোধনী সভা শেষে প্রধান অতিথি অন্যান্য অতিথিদের সাথে নিয়ে ফিতা ও কেক কেটে কিডস হ্যাভেনের শুভ উদ্বোধন করেন।
প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক পরিচালক কৃষিবিদ শাহীন হোসেন জানান, এটি শুধু দিবা যত্ন কেন্দ্রই হবেনা। শিশুদের নিরাপদে রাখার জন্য সব ধরনের ব্যবস্থা তো থাকছেই সে।সিাথে এখানে শিশুদের মনন বিকাশের জন্য খেলাধূলার পাশাপশি নৈতিক ও প্রাক প্রাথমিক শিক্ষা, তাদের দৈহিক ও মানসিক বিকাশের জন্য পুষ্টিসম্মত খাবার প্রদান এর পাশাপাশি ছোট্রকাল থেকেই যেন তারা সতিত্রকারে মানুষ হয়ে বেড়ে ওঠে সেইসব আচার আচরণ শিক্ষা দেয়া হবে। পাশাপাশি বিনোদন ও সাংস্কৃতিক বিভিন্ন বিষয়ে তাদের জন্য বিশেষ বিশেষ শিক্ষার ব্যবস্থা তো থাকবেই।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন