বগুড়া সংবাদ ডট কম (শাজাহানপুর প্রতিনিধি জিয়াউর রহমান) : বগুড়ার শাজাহানপুরে দেশীয় অস্ত্রের মুখে অপহরনের পর পালিয়ে রক্ষা পেয়েছে ৫ম শ্রেণীর এক ছাত্রী। এঘটনায় ওই ছাত্রীর বাবা বাদি হয়ে বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।
অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, উপজেলার বড়নগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেণীর ওই ছাত্রীকে প্রায়ই উত্যেক্ত করতো পলিপালাশ মুন্সিপাড়ার রফিকুল ইসলামের পুত্র সনি (২০) ও রাজারামপুর গ্রামের ফরিদুল ইসলামের পুত্র পায়েল (১৯)। বিদ্যালয়ে যাওয়া-আসার পথে বিভিন্ন ধরনের যৌন ইঙ্গিত ও কু-প্রস্তাব দিত। পথরোধ করে কথা বলতে চাইতো। কিন্তু তাদের কথায় রাজি না হলে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ সহ জোরপূর্বক তুলে নিয়ে যাওয়ার হুমকি দিত। এমতাবস্থায় গত রোববার সকালে মডেল টেস্ট পরিক্ষা শেষে বাড়ি ফেরার জন্য বিদ্যালয়ের গেটের সামনে সিএনজি অটোটেম্পুর জন্য অপেক্ষারত অবস্থায় একটি সিএনজি অটোটেম্পু এসে দাঁড়ায়। ওই অটোটেম্পুতে থাকা সনি ও পায়েল দ্রুত নেমে ধারালো ছোড়ার মুখে জিম্মী করে মেয়েটিকে অটোটেম্পুতে জোর করে তুলে নেয় এবং চিৎকার দিলে এসিডে পুরো শরির ঝলসে দেয়ার হুমকি দেয়। একপর্যায়ে ওই সিএনজি অটোটেম্পু যোগে বগুড়া পল্লী উন্নয়ন একাডেমী এলাকায় নিয়ে গেলে সেখানে স্থানীয় লোকজনকে দেখতে পেয়ে সাহস করে কৌশলে পালিয়ে বাড়িতে চলে আসে মেয়েটি। বিষয়টি জানার পর মেয়েটির বাবা বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতির সাথে পরামর্শ করে মেয়েকে সাথে নিয়ে বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।
এবিষয়ে বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সেলিম জোয়ারদার জানান, অপরাধীদের বিরুদ্ধে দ্রুত কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হলে ভবিষতে আর কেউ এধরনে অপরাধ করতে সাহস পাবে না।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ কামরুজ্জামান অভিযোগ দায়েরের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, অভিযোগ তদন্ত সাপেক্ষে অচিরেই অপরাধীর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন