বগুড়া সংবাদ ডট কম কাহালু (বগুড়া প্রতিনিধি এম এ মতিন) : কাহালু মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি, কাহালু ইউসিসিএলিঃ এর চেয়ারম্যান, উপজেলা নাগরিক কমিটির সভাপতি, কাহালু উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও কাহালু-নন্দীগ্রাম এলাকার আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী মোঃ কামাল উদ্দিন কবিরাজ বলেন, আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন আমিই পাব। বাংলাদেশে যে কয়টি জাতীয় সংসদ নির্বাচন কোন সংসদ নির্বাচনে কাহালু উপজেলার কোন ব্যক্তিই নৌকা প্রতীক নিয়ে পদপ্রার্থী হননি বা কোন প্রার্থীকে নৌকা প্রতীকে মনোনয়ন দেওয়া হয়নি। কাহালু উপজেলা একটি বড় উপজেলা, এখানে ভোটার সংখ্যা বেশী। কাহালু উপজেলায় ৯টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভা আছে। পক্ষান্তরে নন্দীগ্রামে ৬টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভা আছে। সেখানে ভোটার সংখ্যা কাহালু উপজেলার ভোটার সংখ্যা থেকে অনেক কম। এই দিক বিবেচনায় কাহালু-নন্দীগ্রাম সংসদীয় এলাকা থেকে আমি আওয়ামালীগের মনোনয়ন পাবো বলে মনে করি। ১৯৭৫ পরবর্তী আওয়ামীলীগের দুঃসময়ে কাহালু এই জনপদে জয়বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু বলার মতো কেউ ছিলনা। তখন আমি ছাত্রলীগে যোগদান করে জয়বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু শ্লোগানের মধ্যে দিয়ে বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রাণিত ব্যক্তিদেরকে ঐক্যবদ্ধ করতে সক্ষম হই। জামায়াত-বিএনপি তথা ৪ দলীয় জোটের বিরোধী আন্দোলন করতে গিয়ে আমাকে চরম মূল্যে দিতে হয়েছে। ২০০৬ সালের ২৮ অক্টোবরে ৪ দলীয় জোটের সমর্থকেরা সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের অংশ হিসেবে আমার বাসায় পেট্রোল ছুঁড়ে দিয়ে অগ্নি সংযোগ করে ভুস্মীভূত করেছিল এবং আমাকে ৭টি মিথ্যা মামলার আসামী করা হয়েছিল। কাহালু উপজেলার আওয়ামীলীগের কোন নেতাই এমন ক্ষতির সম্মুখিন হয়নি। তিনি আরও বলেন, আওয়ামীলীগ সরকার যখনই ক্ষমতায় আসে তখনই দেশে ব্যাপক উন্নয়ন হয়। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা মার্কার প্রার্থী বিজয়ী করার আহবান জানান। বুধবার বিকেলে “হৃদয়ে কাহালু” কালাই ইউনিয়ন শাখার আয়োজনে পিলকুঞ্জ স্কুল মাঠে এক নির্বাচনী জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন তিনি। বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মোজাহার আলীর সভাপতিত্বে উক্ত নির্বাচনী জনসভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কাহালু সিদ্দিকীয়া ফাজিল (ডিগ্রী) মাদ্রাসার ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ জিয়াউল হাসান, কাহালু মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আলহাজ্ব এফ এম এ ছালাম, সাবেক ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক শফিকুল ইসলাম, পিলকুঞ্জ হিন্দুপাড়া মন্দির কমিটির সভাপতি শ্রী হরিদাস চন্দ্র দেবনাথ,“হৃদয়ে কাহালু” সেফগার্ড শাখার মহিলা নেত্রী নুরুন্নাহার বেগম, কাহালু মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক আলহাজ্ব গোলাম ইয়াছিন বাচ্চু। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন কাহালু উপজেলা নাগরিক কমিটির সদস্য ও কাহালু সিদ্দিকীয়া ফাজিল (ডিগ্রী) মাদ্রাসার সহকারি শিক্ষক শফিউল্লাহ লোটাস, কাহালু মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক নুর-আলম, জহুরুল ইসলাম. জাহিদুর রহমান, সাবেক ছাত্রনেতা তারিকুল ইসলাম তারিক, “হৃদয়ে কাহালু” কালাই ইউনিয়ন শাখার পলাশ চন্দ্র প্রমূখ।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন