bograsangbad_Logoবগুড়া সংবাদ ডট কম : বগুড়া ট্যুরিস্ট ক্লাব-এর প্রধান উপদেষ্টা ও সমন্বয়ক তারেক হাসান শেখ পাপ্পু, ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সামিউল আলম জুমা, সাধারণ সম্পাদক আইয়ুব আলী ও সাংগঠনিক সম্পাদক শাহাজালাল রাফেল এক যুক্ত বিবৃতিতে বগুড়ার স্থানীয় ২টি পত্রিকা, ফেসবুক সহ কিছু অনলাইন পোর্টলে প্রকাশিত ‘বগুড়া ট্যুরিস্ট ক্লবের উদ্যোগে বিশ্ব পর্যটন দিবস পালিত’ খবরের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন। খবরটি আমাদের সংগঠনের পরিচয়ে প্রতারণামূলক ভাবে পাঠিয়ে প্রকাশ করানো হয়েছে; এমনকি বগুড়া পর্যটন মোটেলের ব্যবস্থাপক সৈয়দ তরিকুল ইসলামের কাছেও আমাদের সংগঠনের আজিজুল হক কলেজ কমিটির নাম ভাঙ্গিয়ে তাঁকে ফটোসেশনে অংশগ্রহণ করিয়ে তাঁর সাথে প্রতারণা করা হয়েছে। প্রকাশিত সংবাদগুলোতে সংগঠনের সধারণ সম্পাদক, সাংগঠনিক সম্পদক সহ অন্যান্য পদের পরিচয়দানকারী আমাদের সংগঠনের কোনকালেই কোন পর্যায়ের সদস্য ছিলো না; এমনকি আমাদের সংগঠনের কেও তাদের চেনেও না। উল্লেখ্য, আমাদের বগুড়া ট্যুরিস্ট ক্লাব গত বছরের গহেলা এপ্রিল থেকে নির্বাচিত কমিটির মাধ্যমে এবং মাতৃভূমি তথা নিজ দেশ ভ্রমণ করুণ; দেশকে জানুন, পর্যটন হোক টেকসই উন্নয়নের হাতিয়ার’ এই শ্লোগানকে প্রতিপাদ্য করে বগুড়া সহ সারাদেশে পর্যটনের প্রসার-প্রচার, উন্নয়ন ও সংরক্ষণে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। পাশাপাশি বগুড়া জেলার নানান সামাজিক কর্মকান্ড পরিচালনা করে আসছে। আমাদের সংগঠনের নির্বহী কমিটি, উপদেষ্টা মন্ডলী, স্থায়ী সদস্যবৃন্দ, সাধারণ সদস্য সহ বন্ধু সদস্যদের তালিকা এবং নানান উপজেলা ও কলেজ কমিটির খবর গত দেড় বছরে স্থানীয় ও জাতীয় পত্রিকায় সহা¯্রাধিক বার প্রকাশিত হয়েছে। অন্যদিকে আপনার পত্রিকার সংবাদে সংগঠনের সভাপতি পরিচয়দানকারী শহিদুল ইসলাম সাগরকে গত ৩ ফেব্রুয়ারি বগুড়া ট্যুরিস্ট ক্লাব’র নির্বাহী পরিষদ আয়োজিত এক জরুরী সভায় সংগঠনের আড়ালে আদম ব্যবসা করা সহ নানান সংগঠন বিরোধী কর্মকান্ড এবং ব্যক্তিগত ও চারিত্রিক অপকর্মের অপরাধে সর্বসম্মতিক্রমে সংগঠনের সভাপতি পদ থেকে বরখাস্ত এবং সংগঠনের প্রাথমিক সদস্য পদ থেকে বহিস্কার করা হয়। পাশাপাশি তার বিরুদ্ধে একাধিক আইনী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়; এরপর থেকে সে পলাতক থাকায় তাকে ধরিয়ে দেওয়ার জন্য সংগঠনের মাধ্যমে ১০ হাজার টাকা পুরস্কার ঘোষণা করা হয়েছে। কিন্তু উক্ত নেক্কারজনক ঘটনার পর থেকে বহিষ্কৃত সাগর গত ৮ মাস ধরে নিজের সকল তথ্য গোপন করে ফেসবুকের মাধ্যমে বগুড়া ট্যুরিস্ট ক্লাব’র সভাপতি পরিচয়ে নানান সাংগঠনিক ও অবৈধ অর্থনৈতিক কর্মকান্ড পরিচালনা করে আসছে; যা সম্পূর্ণ বে-আইনী বা আইনের উলঙ্ঘন। পাশাপাশি সে আমাদের সংগঠন ও এর নেতাকর্মীদের বিতর্কিত করতে নিজে আত্মগোপন ও পর্দার আড়ালে থেকে ২/১ জন অপরিচিত মানুষের সহযোহিতায় সংগঠনের সুনামকে কাজে লাগিয়ে ্গতকালের প্রকাশিত খবরের মতো নানান প্রতারণামূলক ঘটনার অবতারণা ঘটাচ্ছে। আমরা বগুড়া ট্যুরিস্ট ক্লাব এবং সংগঠনের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের পক্ষ থেকে উক্ত প্রতারকদের এহেন কর্মকান্ডের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি।
উল্লেখ্য যে, বগুড়া ট্যুরিস্ট ক্লাব একটি অলাভজনক সামাজিক সংগঠন এবং প্রোগ্রাম অনুযায়ী সদস্যদের চাঁদার ভিত্তিতে পরিচালিত হয়; অপরদিকে সংগঠন কোন ভিসার ব্যবসা, প্যাকেজ ট্যুর বিক্রয় কিম্বা সদস্যদের বাহিরে অনুদান গ্রহন করে না। আমাদের সংগঠনের সকল পর্যায়ের প্রতিটি নেতাকর্মী এক ও অভিন্ন ভাবে কাজ করে যাচ্ছি এবং আমাদের মধ্যে কোন বিভেদ বা ভাঙ্গন নেই। আরো উল্লেখ থাকে যে, একটি সংগঠনের একই নামে পাল্টা কমিটি করতে গেলেও উক্ত কমিটির অন্তত এক তৃতীয়াংশ সদস্যদের প্রয়োজন পড়ে। [খবর বিজ্ঞপ্তি]

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন