বগুড়া সংবাদ ডটকম (শেরপুর প্রতিনিধি কামাল আহমেদ) : মাদক একটি সামাজিক ব্যধি, মাদকের নেশা মানুষকে জঘন্যতম জীবনে ঠেলে দেয়, মাদক সেবনকারী ও বিক্রেতারা সমাজের প্রতিটি মানুষের কাছে ঘৃণিত। তাইতো সকল হয়রানী, মানসিক টেনশন থেকে পরিত্রাণ পেতে শত কষ্ট-দু:খ সহ্য করে স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে চায় মাদক বিক্রেতা খ্যাত জেসমিন আক্তার জহুরা ও তার স্বামী শহিদুল ইসলাম সাবান।
সমাজের কিছু ভাল মানুষের মতো নিজের জীবনকে আলোকিত করতে ২৮ জানুয়ারী সোমবার দুপুর ১২ টায় শেরপুর প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে উপজেলার মির্জাপুরের মদনপুর গ্রামের মৃত পামোছার ছেলে শহিদুল ইসলাম সাবান বলেন, আমরা সাধারণ কৃষক হয়ে সামান্য জমিজমা চাষের পাশাপাশি বাজারে মনোহারী দোকান করে সাদামাঠা জীবন যাপন করছিলাম। কিন্তু এলাকার কিছু অসাধু মাদক ব্যবসায়ীর খপ্পরে পড়ে ও প্রলোভনে মাদকের নীল ছোবলে নিজে আসক্ত হয়ে পড়ার পাশাপাশি ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ি। এ ব্যবসায় আমার কারণে স্ত্রী জেসমিন আক্তার জহুরাও জড়িয়ে পড়ে। নিষিদ্ধ এ ব্যবসার কারণে একদিকে পুলিশী মামলায় জীবন নিয়ে শংকা, অন্যদিকে সমাজের চোখে ঘৃণিত হয়ে অস্বাভাবিক জীবন নিজেকে কুঁেড় কুঁড়ে খাচ্ছে। তাইতো মাদকের এই বিষাক্ত ছোবল থেকে নিজেকে চিরতরে বাঁচাতে এবং সুষ্ঠ ও স্বাভাবিক জীবন করতে সকলের সহযোগীতা কামনা করছি।
আর এ কারণে ওই মাদকাসক্ত স্বামী-স্ত্রী তাদের মির্জাপুরের মদনপুরের পৈত্ত্বিক বাড়ী ও জমি বিক্রি করে শহরের হাজিপুর এলাকায় বসবাস করে আসছে বলেও উল্লেখ করেন ওই সংবাদ সম্মেলনকারীদ্বয়। তবে তারা এহেন অপকর্ম ভবিষ্যতেও আর কোনদিন করবেনা বলে ঘোষণাসহ প্রশাসন ও সচেতন এলাকাবাসীর সহযোগীতা কামনা করেন।

Facebook Comments (ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন